পরিবর্তন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর বানিজ্য মেলার জুয়া ও অশ্লীলতা বন্ধ করলেন যুবলীগ নেতা সাদিক আব্দুল্লাহ

রুবেল খান॥ অবশেষে বন্ধ করে দেয়া হলো বরিশাল আন্তর্জাতিক বানিজ্য মেলার যাত্রা, জুয়া আর বিচিত্রানুষ্ঠানের নামে অশ্লীলতা। আজকের পরিবর্তন পত্রিকায় একের পর এক সংবাদ প্রকাশের পরেও পুলিশ প্রশাসন যখন নিরব ভূমিকায়, ঠিক তখনই মহানগর আওয়ামী লীগ ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের তরুন নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ এসব কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেন। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি স্ব-শরীরে মেলার মাঠে উপস্থিত হয়ে জুয়া এবং অশ্লীলতা পরিচালনাকারীদের এই নির্দেশ প্রদান করেন। সেই সাথে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে জুয়া, যাত্রা এবং বিচিত্রানুষ্ঠান সহ অন্যান্য কার্যক্রম চালানোর দায়ে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার দায়ভার সংশ্লীষ্টদের নিতে হবে বলেও হুশিয়ার করে দেন নগর আওয়ামী লীগের এই তরুন নেতা।
এদিকে দীর্ঘদিন পরে হলেও বানিজ্য মেলার নামে অশ্লীলতা এবং হাউজি-জুয়া বন্ধ করে দেয়ায় সস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে দেখা গেছে সাধারন মানুষের মধ্যে। সেই সাথে সমাজ উন্নয়নে এমন যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহন করায় নগরবাসীর কাছে আরো একবার প্রশংকার পাত্র ও জননন্দিত নেতা হিসেবে উপাধী পেলেন আ’লীগের তরুন নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। এমনকি ঘটনার সময় মেলার মাঠে উপস্থিত অনেক সাধারন নারী-পুরুষ দর্শকরা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানাতে দেখাগেছে।
সূত্রমতে, মাস খানেক পূর্বে বরিশাল নগরীর বান্দ রোডে বিআইডব্লিউটিএ’র মেরিন ওয়ার্কশপ মাঠে শুরু হয় আন্তর্জাতিক বানিজ্য মেলা। নামে বানিজ্য মেলা হলেও প্রশাসনের একাংশকে ম্যানেজ করে বিকাল থেকে রাতভর চালানো হয় হাউজি সহ সকল প্রকার জুয়া। সেই সাথে দর্শকদের বিনোদনের নামে যাত্রা, ভ্যারাইটি শো (বিচিত্রানুষ্ঠান), পুতুল নাম এবং ম্যাজিক শো’র নামে অশ্লীল নৃত্য ও করা হয় নর্তকিদের নগ্ন দেহ প্রদর্শন। শুধু তাই নয়, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ, যুবলীগ এবং ছাত্রলীগের স্থানীয় পর্যায়ের কিছু সংখ্যক নেতা-কর্মীদের নেতৃত্বে পরিচালিত এসব যাত্রা, ভ্যারাটি শো, পুতুল নাচ ও ম্যাজিক শো’র প্যান্ডেলে নর্তকিদের দিয়ে করানো হয় দেহ ব্যবসা। মঞ্চে অশ্লীল নৃত্যের সময় মাত্র ৫ থেকে ১০ টাকায় নর্তকিদের নগ্ন দেহের আপত্তিকর স্থান স্পর্শ করা মামলি ব্যাপার হয়ে দাড়ায়। এমন মাসের পর মাস এমন চলতে থাকায় বিপদগামী হয়ে পড়ে যুব ও ছাত্র সমাজ। পাশাপাশি হাউজি, ওয়ান টেন, শুটিং, বউ খেলা, বাউটা সহ নানা রকমের জুয়ার নামে সাধারন মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় ক্ষমতাসীন দলের একটি গ্রুপ। প্রশাসনের নিরাপত্তায় এমন কার্যক্রম চলতে থাকলেও এর কোন প্রতিবাদ করেনি তারা।
এদিকে কয়েকদিন পূর্বে শেষ হয় বানিজ্য মেলার মেয়াদ। কিন্তু এর এক থেকে দুদিন পরেই আবার মেলার সময় বাড়িয়ে আনা হয়। সেই সাথে প্রশাসন ম্যানেজ করে চলতে থাকে জুয়া এবং অশ্লীলতার কার্যক্রম।
এ নিয়ে আজকের পরিবর্তন পত্রিকায় গত দু-দিন নর্তকিদের অশ্লিল নৃত্য ও নগ্ন দেহ প্রদর্শনের ছবি সহ সংবাদ প্রকাশিত হয়। কিন্তু এর পরেও ঘুম ভাঙ্গেনি পুলিশ প্রশাসনের। তাদের রহস্য জনক নিরাবতায় জুয়া আর অশ্লীলতা প্রদর্শন করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় ক্ষমতাসীন আয়োজক ও পরিচালনাকারীরা।
অপরদিকে সংবাদ প্রকাশের পর পুলিশ প্রশাসনের ঘুম না ভাংলেও নড়েচড়ে বসেছেন বরিশাল তথা দক্ষিণাঞ্চলের যুবসমাজের অহংকার ও নগর আওয়ামী লীগের তরুন নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। লাখ নগরবাসীর প্রাণের দাবী বাস্তবায়নে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মেলার মাঠে ছুটে যান তিনি। এসময় তিনি পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের সত্যতা যাচাই এবং এমন অশ্লীল কার্যক্রমের জন্য দলের বদনাম এবং সমাজ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে জুয়া ও অশ্লীলতার আয়োজক স্থানীয় আ’লীগ নেতা-কর্মীদের ডেকে কথা বলেন। এক পর্যায় তরুন এই নেতা যাত্রা, ভ্যারাইটি শো, পুতুল নাচ, ম্যাজিক শো, হাউজি সহ সকল প্রকার জুয়া বন্ধ করার নির্দেশ দেন। গতকাল থেকে পরবর্তী সময়ে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পুনরায় অশ্লীলতার আয়োজন করলে এ নিয়ে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার জন্য আয়োজকরাই দায়ি থাকবে বলে জানিয়ে দেন তিনি। তবে শুধু মাত্র র‌্যাফেল ড্র’ এবং ঐতিহ্যবাহী সার্কাস খেলা চলবে বলে জানিয়ে দেন তিনি। পরে সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ বানিজ্য মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন। এসময় তার সাথে ছিলেন মহানগর যুবলীগ নেতা এ্যাড. রফিকুল ইসলাম খোকন, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আতুকুল্লাহ মুনিম, সাধারন সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।