পবিত্র রামজান উপলক্ষে টিসিবি’র পন্য বিক্রি শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ আসন্ন পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে নগরীতে কার্যক্রম শুরু করেছে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। পবিত্র এই মাসে বাজার সিন্ডিকেট ঠেকাতে ইতোমধ্যে টিসিবি’র পন্য ডিলারদের মাঝে সংগ্রহ শুরু করেছে এখানকার কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবার রমজান মাসের প্রথম বরাদ্দের চাল, ডাল, চিনি ও ছোলা সরকার নির্ধারীত মূল্যে বিক্রির জন্য তিন ডিলার পণ্য উত্তোলন করেছেন। অন্যান্যরা আজ থেকে টিসিবি পণ্য সরবরাহ শুরু করবেন বলে জানিয়েছেন বরিশাল আঞ্চলিক কর্মকর্তা আতিকুর রহমান।
তিনি জানান, রমজান মাস আসলেই বাজার সিন্ডিকেট চক্র সক্রিয় হয়ে যায়। তারা রমজান মাসকে পুজি করে বিভিন্ন পণ্য সামগ্রির দাম বাড়িয়ে ফেলে। যে কারনে ভোক্তাদের পড়তে হয় বিপাকে। তাই সরকার নিত্য পন্য দ্রব্য’র মূল্য স্থিতিশিল, বাজার দল নিয়ন্ত্রন ও সিন্ডিকেট ভাংতে ন্যায্য মূল্যে পন্য সামগ্রি বিক্রি শুরু করেছে। বছরের প্রতিটি মাসেই এ কার্যক্রম চলমান থাকে। তবে রমজান মাস উপলক্ষে টিসিবি প্রধান কার্যালয় থেকে ইতোমধ্যে তাদের আঞ্চলিক কার্যালয়ে বরাদ্দ নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, রমজানের প্রথম বরাদ্দ গত বৃহস্পতিবার থেকে ডিলারদের সরবরাহ শুরু হয়েছে। প্রথম দিন নগরীর তিন জন ডিলার পণ্য সরবরাহ করেছে। এরা নগরীতে ভ্রাম্যমান অবস্থায় সরকার নির্ধারিত মূল্যে এবং এক টাকা লাভে পণ্য বিক্রি করবে।
টিসিসি’র পন্ন উত্তোলনকারী ডিলাররা হলো- শাহানাজ এন্টার প্রাইজ। তিনি ৫শ কেজি চিনি, মশুরে ডাল ২শ কেজি, ছোলা বুট ৫শ কেজি এবং উন্নত মাসের সয়াবিন তেল ৪শ লিটার।
অপর ডিলার আর্থি এন্টার প্রাইজ ৫শ কেজি চিনি, মশুরে ডাল ২শ কেজি, ছোলা বুট ৫শ কেজি এবং উন্নত মাসের সয়াবিন তেল ২শ লিটার।
এছাড়া সোহেল এন্টার প্রাইজ নামের ডিলার ৫শ কেজি চিনি, মশুরে ডাল ২শ কেজি, ছোলা বুট ৫শ কেজি এবং উন্নত মাসের সয়াবিন তেল ৩শ লিটার উত্তোলন করেছেন।
এর মধ্যে চিনি প্রতি কেজি সরকার নির্ধারীত মূল্য ৩৭ টাকা, মশুর ডাল প্রতি কেজি ১০৩ টাকা ও ছোলা বুট প্রতি কেজি ৫৩ টাকা মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে। এছাড়া প্রতি লিটার ফ্রেশ ছয়াবিন তেল ৮৮ লিটা এবং পুষ্টি সয়াবিন তেলের প্রতি ২ লিটারের ক্যান ৮৯ টাকায় ভোক্তাদের কাছে বিক্রয় মূল্য নির্ধারন করে দেয়া হয়েছে।
আতিকুর রহমান বলেন, তার অধিনস্ত ৮ জেলায় ১৪৯ জন ডিলার রয়েছে। এর মধ্যে আপাতত নগরীতে ৫ জন ট্রাক ডিলারকে রমজানের বরাদ্দের পন্য সামগ্রী দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু তিন জন পণ্য উত্তোলন করলেও বাকি দুজন ডিলার এখন পর্যন্ত পন্য উত্তোলন করেনি। আজ শনিবার থেকে বরিশাল সহ ৮ জেলায় পন্য সামগ্রি বরাদ্দ দেয়া শুরু হবে বলেও জানান তিনি।