পদোন্নতি পেতে ‘মীর জাফর’ নাদিমের হামলার নাটক ফাঁস

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ৩য় শ্রেণীর কর্মচারী কল্যাণ পরিষদ থেকে বহিষ্কৃত সভাপতি ও অফিস সহকারী নাদিম মল্লিক পদোন্নতি পেতে ভিসি’র সহানুভূতি আদায়ে হামলার নাটক করেছে। ঘটনাটি ফাঁস হয়ে যায় বেকায়দা পড়েছেন নাসিম। এখন ভিসি’রও বিরাগভাজন হয়ে দাড়িয়েছে ববি’তে ‘মীর জাফর’ আখ্যা পাওয়া নাদিম মল্লিক। নাদিম কোস্টাল এন্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে কর্মরত রয়েছেন। বর্তমানে সেকশন অফিসার হওয়ার জন্য ভিসি’র তেল মর্দনে বেশী সময় দিচ্ছেন। ববি’র ৩য় শ্রেণীর কর্মচারী কল্যাণ পরিষদ সূত্র থেকে জানা গেছে, সভাপতি হওয়ার পর দাপ্তরিক কার্যক্রম বাদ দিয়ে নাদিম বেশীরভাগ সময় ভিসি’র পিছনে ব্যয় করছেন। এর প্রধান কারণ হচ্ছেন সেকশন অফিসার পদে পদোন্নতি পাওয়া। আর এ পদোন্নতি আরো সহজ করতে ভিসি’র বিরাগভাজন হিসেবে পরিচিত রেজিস্ট্রার মনিরুল ইসলামের সাথে দুর্ব্যবহার করে নাদিম। তার সাথে উচ্চস্বরে কথা বলাসহ বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি করে। যা রেজিস্ট্রারকে লাঞ্ছিত করার সামিল ছিল। এ ঘটনার পর নাদিমকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। ওই নোটিশ দেয়ার পর জরুরী সভা আহ্বান করে ৩য় শ্রেণীর কর্মচারী কল্যাণ পরিষদ। জরুরী সভায় নাদিম মল্লিককে সংগঠনের সদস্য পদ এবং সভাপতি পদ বাতিলের প্রস্তাব আনা হয়। প্রস্তাবে সমর্থন করেন কমিটির ১০ সদস্য। এরপর নাদিমকে সভাপতি পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। কমিটির একাধিক নেতা জানিয়েছেন, তাদের সংবিধান অনুুযায়ী কমিটির কেউ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে খারাপ আচরণ করলে আর তা প্রমানিত হলে তাকে কমিটি থেকে বহিষ্কার করা হবে। সম্প্রতি সভাপতি নাদিম মল্লিক ববি’র রেজিস্ট্রার’র সাথে দুর্ব্যবহার করায় জরুরী সভা আহ্বান করে তার দলীয় সদস্য পদ বাতিল করা হয়। এতে করে সভাপতির পদও বাতিল হয়ে যায়। সে এখন ৩য় শ্রেণী কর্মচারী কল্যান পরিষদের কেউ নয়। অপর একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, কল্যাণ পরিষদের সভাপতি হওয়ার সুবাধে নাদিম ভিসি’র কাছর লোক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে। এর প্রধান কারণ হচ্ছে সেকশন অফিসার পদে পদোন্নতি। এ কারণে নাদিম ভিসি’র যে সব কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের অন্য চোখে দেখেন নাদিমও তাদের বিরুদ্ধাচারণ করা শুরু করে। আর ভিসি যাদের ভালো চোখে দেখে নাদিম তাদের সাথে তেল মর্দনে বেশী সময় কাটান। যে কোনপন্থায় তার পদোন্নতির মিশন সাকসেস করতে। এ জন্য নাদিম ভিসি’র সহানুভূতি পেতে হামলার নাটক সাজায়। সম্প্রতি ববি’র ক্যাম্পাসের বাহিরে কে বা কারা নাদিমের উপর হামলা চালায়। তবে নাদিম যে সময় তার উপর হামলার বিষয়টি সবাইকে জানিয়েছে ওই সময় সেখানে এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। নাদিম তার গায়ের জামা ছিড়ে তার উপর হামলার নাটক প্রতিষ্ঠিত করতে ব্যর্থ হয়। এ কারণে থানা পুলিশও তার অভিযোগ আমলে নেয়নি। এসব ছিল ভিসি’র সহানুভূতি পেয়ে পদোন্নতি নিশ্চিত করা। এখন নাদিমের হামলার নাটক ফাঁস হয়ে যাওয়ায় ভিসিও তার উপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন বলে ক্যাম্পাস সূত্র থেকে জানা গেছে। এখন পদোন্নতি ও ভিসি’র কাছের লোক হিসেবে পরিচিত পাওয়া মীর জাফর নাদিমের সবকিছু ভেস্তে যাচ্ছে। এমনকি নাদিম চেয়েছিল তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা নেতাদের মামলায় জড়ানো। কিন্তু হামলার নাটক ফাঁস হওয়ায় নাদিমের সে উদ্দেশ্যও নসাৎ হয়ে গেছে। এ ব্যাপারে নাদিম মল্লিকের সাক্ষাতকার গ্রহনের জন্য তার মোবাইল নম্বরে কল করা হলে তিনি তা রিসিভ করেননি।