পত্রিকা হচ্ছে উন্নয়নের স্বাক্ষী ও সহায়ক- অতিরিক্ত সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান বলেছেন, পত্রিকা হচ্ছে উন্নয়নের স্বাক্ষী ও সহায়ক। সাংবাদিকরা সমাজের অগ্রগামী মানুষ। পত্রিকা থেকে মানুষ নতুন নতুন তথ্য ও খবর জানতে পারে। তাই সংবাদপত্রের সব কিছু গঠনমুলক হতে হবে। দুঃখী মানুষের কথা কিংবা খারাপ খবরের সাথে সাথে সৃজনশীল, উদ্যমী, ভাল এবং সাহসী কর্মকান্ড যা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়ক, সেই ধরনের খবর প্রকাশ করতে হবে। কারন এ ধরনের খবরে অন্যরা অনুপ্রানিত হবে। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় দৈনিক আজকের পরিবর্তন পরিবারের সাথে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন তিনি। দৈনিক আজকের পরিবর্তন পত্রিকা দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের গ্রহনযোগ্যতা ও প্রভাব ধরে রেখেছে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রিন্ট মিডিয়ার গুরুত্ব এখনো রয়েছে। সকল কিছুর মৌলিক পরিবর্তন পত্রিকা আনতে পারে। দৈনিক আজকের পরিবর্তন পত্রিকা তার নামের মতো আগামী দিনের পরিবর্তনের কাজ করবে। তিনি বলেন, যৌবনের ধর্ম চ্যালেঞ্জ গ্রহন করা। যৌবন চ্যালেঞ্জ ছাড়া কাজ করতে পারে না। তেমনি প্রতিকূল পরিবেশে বিশ্বাস হারানো যাবে না। সততা, নিষ্ঠা, নিয়মানুবর্তিতা মেনে এগিয়ে যেতে হবে। সংবাদকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বর্তমানে সংবাদপত্রে পেশাদারিত্বের অভাব রয়েছে। তবুও নিজস্ব স্বতন্ত্র বজায় রেখে কাজ করার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান। মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন দৈনিক আজকের পরিবর্তন পত্রিকার সম্পাদক কাজী মিরাজ মাহমুদ। সভায় আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল শিক্ষা বোর্ড চেয়াম্যান প্রফেসর মু. জিয়াউল হক, দৈনিক কীর্তনখোলা পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সালেহ টিটু। এছাড়াও পত্রিকার বার্তা সম্পাদক সাইদ মেমন, চীফ রিপোর্টার রুবেল খান, স্টাফ রিপোর্টার ওয়াহিদ রাসেল, সিদ্দিকুর রহমান জনি, ফটো সাংবাদিক রাতুল আহমেদ, রুবেল পারভেজ, কম্পিউটার অপারেটর সবুর হোসেন, গোলাম রাব্বি, ব্যবস্থাপক শাহ মুনীর, বিক্রয়-বিপনন ব্যবস্থাপক সৈয়দ শফিকুল ইসলাম রিয়াজ, বিজ্ঞাপন ব্যবস্থাপক আবু তালহা রিমন, অফিস সহায়ক কামাল হোসেন প্রমুখ।