নিখোঁজ ছাত্রদল নেতা কালু ও তার ভাইকে আদালতে হাজির হওয়ার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ জিতু হত্যা মামলার বিচার কাজ শুরু জন্য নগরী নিখোঁজ ছাত্রদল নেতা ও তার ছোট ভাইয়ের বিরুদ্ধে জারী করা গ্রেপ্তারী পরোয়ানার আদেশ বিজ্ঞপ্তি আকারে স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশ করা হয়েছে। চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আলী হোসাইন স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তি গত বুধবার স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশ করা হয়েছে। ওই ছাত্রদল নেতা হলো- নগরীর ২০ নং ওয়ার্ড শাখার সভাপতি ফিরোজ খান কালু ও ছোট ভাই মিরাজ খান। কলেজ রোড এলাকার মৃত. আয়নাল খানের ছেলে তারা।
বরিশাল কলেজ শাখা ছাত্রদলে’র যুগ্ম আহ্বায়ক রাফসান আহম্মেদ জিতু হত্যা মামলার প্রধান অভিযুক্ত কালু ও মিরাজ ২০১২ সালের ২৪ আগষ্ট থেকে নিখোঁজ রয়েছে বলে পরিবার দাবি করেছে। তাদের নিখোঁজ দাবী করে মা, কালুর স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে বরিশাল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে।
প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে দেখা গেছে, তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারী করা হয়। তারা আত্মগোপনে থাকায় আদালতে সোপর্দ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই মামলার বিচারের জন্য ১৫ দিনের মধ্যে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়ে ওই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। এর মধ্যে হাজির না হলে তাদের অনুপস্থিতি মামলার বিচার কাজ শুরু করা হবে।
সরকারি বরিশাল কলেজ ক্যাম্পাসে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কলেজ শাখা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক হাসপাতাল রোডের বাসিন্দা রাফসান আহম্মেদ জিতুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের ভাই টিপু বাদী হয়ে ঘটনার দিন ২০ নং ওয়ার্ড ছাত্রদল সভাপতি ফিরোজ খান কালুকে প্রধান করে মামলা করে। এরপর থেকে কালু ও তার ভাই মিরাজ আত্মগোপনে যায়। আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় দুই ভাই নিখোঁজ হয় বলে পরিবার দাবি করছে। তাদের অনুপস্থিতির কারনে আলোচিত ওই হত্যা মামলাটির বিচারক কার্য শুরু বিলম্বিত হচ্ছে। এর প্রেক্ষিতে বিজ্ঞপ্তি পত্রিকায় প্রকাশ করা হয়েছে।