না ফেরার দেশে বিএনপির নগর সম্পাদক শাহীন

রুবেল খান॥ পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চিরতরে বিদায় নিলেন মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও জেলা জজ আদালতের সাবেক পিপি সদা হাস্যোজ্জল এ্যাড. কামরুল আহসান শাহীন গতকাল রোববার রাত ৩টায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনারী কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। (ইন্না লিল্লাহে…রাজেউন)।  -ই-হেমায়েত ইসলাম ঈদগা মাঠে মরহুমের জানাজা শেষে বিকাল সাড়ে ৫টায় মুসলিম গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে। আজ সোমবার নগরীর সদর রোডের কাকলির মোড় ডা. সোবাহান কমপ্লেক্সে নিজ বাস ভবনে মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া ও মিলাদ-মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।
আকস্মিক মহানগর বিএনপি’র এই নেতার মৃত্যু সংবাদে স্তব্ধ হয়ে গেছে গোটা নগরী। পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতা-কর্মী, কর্মময় জীবনের সঙ্গী ও পাড়া প্রতিবেশিদের মাঝে বইছে শোকের মাতম। তার মৃত্যুতে মহানগর বিএনপি ৩ দিনের শোক কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। এছাড়া শাহীনের মৃত্যুতে সকাল ৮টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত বন্ধ ছিলো বরিশাল আদালত পাড়ার সকল কার্যক্রম।
বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মহসিন মন্টু জানান, গত শনিবার আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে পিকনিক অনুষ্ঠিত হয়। খুব হাস্যোজ্জল এবং সুস্থ শরীরে পিকনিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করেন এ্যাড. কামরুল আহসান শাহীন। সন্ধ্যা ৬টায় পিকনিক শেষ করে নগরীতে ফিরে যে যার মত চলে যায়। রাত ৩টার দিকে হঠাৎ করেই মোবাইল ফোনে রিং বেজে ওঠে। কল রিসিভ করে শুনতে পাই কামরুল আহসান শাহীন আর নেই।
তিনি বলেন, রাত আড়াইটার দিকে নগরীর সদর রোড ডাঃ সোবাহান কমপ্লেক্সে ঘুমের ঘোরে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাৎক্ষনিক ভাবে তাকে রাত ২টা ৫০ মিনিটে শেবাচিম হাসপাতালের সিসিইউতে ভর্তি করা হয়।
এ বিভাগের চিকিৎসক সহকারী রেজিষ্ট্রার ডাঃ আব্দুল মন্নান জানান, কামরুল আহসান শাহীনকে সিসিইউতে নিয়ে আসার ৫ মিনিটের মাথায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি মারা যান।এদিকে কামরুল আহসান শাহীন এর মৃত্যু সংবাদে সকালে তার বাস ভবনে ছুটে যান কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক ও বরিশাল মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ার, বরিশাল জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. তালুকদার মোঃ ইউনুস-এমপি, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ, বরিশাল দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি এ্যাড. এবায়দুল হক চান, সাধারন সম্পাদক এ্যাড. আবুল কালাম শাহীন, উত্তর জেলা বিএনপি’র সভাপতি সাবেক এমপি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ,
মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক আলতাফ মাহমুদ শিকদার , সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান খসরু সহ বিএনপি ও আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা।
পরবর্তীতে বেলা পৌনে ১১টায় চিরচেনা ও স্মৃতি বিজড়িত কর্মস্থল বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতি কার্যালয়ের সামনে নিয়ে যাওয়া হয় কামরুল আহসান শাহীনকে। আদালত চত্ত্বরে মরহুমের প্রথম জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা ও দায়রা জজ আনোয়ারুল হক, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবর রহমান, জন নিরাপত্তা বিজ্ঞকারী অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল’র বিচারক মোঃ আলী হায়দার, চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক, চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আলী হোসাইন, ও যুগ্ম জেলা জজ আবিদ আলী সহ জজশিপের অন্যান্য বিচারক, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি একেএম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক মহসিন মন্টু সহ জেলা আইনজীবী সহকারী সমিতির সভাপতি ও সম্পাদকসহ সকল পর্যায়ের বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। জানাজা শেষে মরহুমের কফিনে ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তারা।
অপরদিকে দুপুর ২টায় কামরুল আহসান শাহীন এর লাশ নিয়ে যাওয়া হয় সদর রোডের অশ্বিনী কুমার হল সংলগ্ন বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপি রাজনৈতিক কার্যালয়ে। সেখানে নেয়া মাত্র জন¯্রােত নেমে আসে দলীয় কার্যালয়ের সামনে। বিএনপি ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের হাজার হাজার নেতা-কর্মীরা শাহীনকে শেষ বারের মত শ্রদ্ধা জানাতে ছুটে যান। এসময় মহানগর বিএনপি’র পক্ষে সভাপতি এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ার, জেলা বিএনপি’র পক্ষে সভাপতি এবায়দুল হক চান, সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম শাহীন, দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, সাধারণ সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান এবং সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামাল এর পক্ষে সহ অন্যান্য নেতা-কর্মীরা ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানান।
তখন সেখানে এক সংক্ষিপ্ত সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সভাপতি ও মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, কামরুল আহসান শাহীন ছিলেন তার রাজনৈতিক সহকর্মী। সর্বদাই তাকে পাশে পেয়েছি। রাজনীতির ক্ষেত্রে নিয়েছি অনেক সহযোগিতা। তাকে হারিয়ে বরিশাল বিএনপি একজন যোগ্য নেতা ও নেতৃত্বকে হারিয়েছি। তাই শাহীনের হয়ে সকল নেতা-কর্মীদের কাছে তার ভুল ত্রুটির জন্য ক্ষমা চান তিনি। একই সাথে মহানগর বিএনপি’র পক্ষ থেকে প্রিয় সহযোদ্ধাকে হারানোয় তিন দিনের শোক কর্মসূচি ঘোষণা করেন এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ার। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আজ দলীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, দলীয় পতাকা অর্ধনমিত অবস্থায় উত্তোলন, কালোব্যাচ ধারণ এবং আগামী মঙ্গলবার অশ্বিনী কুমার হলে শোক সভা ও দোয়া-মোনাজাত।
এদিকে বাদ আসর মরহুম এ্যাড.কামরুল আহসান শাহীন এর দ্বিতীয় জানাজা নামাজ নগরীর জিলা স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজাস্থল জনসমুদ্রে পরিণত হয়। দল-মত নির্বিশেষে হাজার হাজার মানুষ তার জানাজা নামাজে যোগ দেন। এসময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন নগর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক এমপি এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ার, দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি এবায়দুল হক চাঁন, সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. আবুল কালাম শাহীন, উত্তর জেলা বিএনপি’র সভাপতি সাবেক এমপি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, সাধারণ সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান, সাবেক এমপি আবুল হোসেন, , মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. আফজালুর করিম, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক জিয়াউল হক, বরিশাল সিটি’র প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব কেএম শহীদুল্লাহ, সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও মহানগর বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আলতাফ মাহমুদ সিকদার, আসাদুজ্জামান খসরু, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জিয়া উদ্দিন সিকদার, মনিরুজ্জামান ফারুক, জাতীয় পার্টির নেন্দ্রীয় নেতা অধ্যাপক মহসিন উল ইসলাম হাবুল, আনোয়ারুল হক তারিন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু, কেন্দ্রীয় যুবদল নেতা মোমেন সিকদার, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি একেএম জাহাঙ্গীর, সম্পাদক মহসিন মন্টু, সাবেক সম্পাদক লস্কর নুরুল হক, আনিস উদ্দিন শহীদ, সাবেক সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আজিজুল হক আক্কাস, কাউন্সিলর আক্তারুজ্জামান হিরু, বিএনপি নেতা কোতয়ালী বিএনপি’র সভাপতি এ্যাড. এনায়েত হোসেন বাচ্চু প্রমুখ।
দ্বিতীয় জানাজা নামাজ শেষে জিলা স্কুল মাঠে আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জাগপা, এনপিপি, যুবদল, যুবলীগ, ছাত্রদল, ছাত্রলীগ সহ অন্যান্য সংগঠনের পক্ষ থেকে শেষবারের মত ফুলেল শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে বিকাল সাড়ে ৫টায় নগরীর মুসলিম গোরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়েছে কামরুল আহসান শাহীনকে।