নাহিদপন্থীদের হাতে জসিমপন্থী প্রহৃত

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বিমানবন্দর থানা ছাত্রলীগ সম্পাদককে মারধরের পরে র‌্যাবের হাতে তুলে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে বিএম কলেজ অবৈধ কর্মপরিষদের সাবেক জিএস এর বিরুদ্ধে। গতকাল রবিবার দুপুরে নগরীর নথুল্লাবাদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি জসিম সমর্থক ছাত্রলীগের ঐ নেতার মোটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগ নেতা কাজী মিলন জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্ম বার্ষিকী পালন উপলক্ষে মহানগর ছাত্রলীগের উদ্যোগে আনন্দ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচীতে যোগ দেয় বিমানবন্দর থানা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সোলায়মান হোসেন পারভেজ। কর্মসূচী শেষে মোটর সাইকেল যোগে বাসায় ফিরছিলেন পারভেজ। বিএম কলেজ এলাকায় পৌছানো মাত্রই বিএম কলেজ অবৈধ কর্মপরিষদের সাধারন সম্পাদক নাহিদ সেরনিয়াবাত এর সমর্থক আরিফ, জুবায়ের, মুন্না ও সাইদি সহ ১০/১৫ জন ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা তাকে ধাওয়া করে। এক পর্যায় নথুল্লাবাদ পুল সংলগ্নে পারভেজকে ধরে মারধর করে তারা। এ সময় তার মোটর সাইকেল ভাংচুর করলে পারভেজ দৌরে গিয়ে পাশ্ববর্তী হোসাইনীয়া মাদ্রাসায় আশ্রয় নেয়। পরে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে র‌্যাবের হাতে তুলে দেয় বলেও অভিযোগ করেছে পারভেজ এর ছোট ভাই।
এদিকে মহানগর ছাত্রলীগ এর জসিম সমর্থকরা অভিযোগ করে বলেন, সম্প্রতি নাহিদ সেরনিয়াবাত এর উপরে হামলা ও তাকে মারধর করা হয়। সেই ঘটনার জের ধরেই বিমান বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সোলায়মানকে মারধর করে র‌্যাবের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে নাহিদ সেরনিয়াবাত এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনাটি অস্বীকার করে বলেন আমি বা আমার কোনো লোক এ ধরনের
ঘটনা ঘটায়নি বা জড়িত না। তিনি বলেন বিমান বন্দর থানায় ছাত্রলীগের কোন কমিটি হয়নি। আর ঐ ছেলে যাকে আটক করা হয়েছে, সে ছাত্রলীগের কেউ না। সে একজন মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত। তিনি জানান স্থানীয় মুসুল্লিরা তাকে ধাওয়া করে ইয়াবা সহ র‌্যাবের হাতে তুলে দিয়েছে বলে শুনেছি। যাকে মুসুল্লিরা আটক করেছে সে শিবির কর্মী বলেও দাবী করেন নাহিদ।