নার্সকে মুক্তি দেয়ায় চিকিৎসকদের আন্দোলনের হুমকি ॥ সমঝোতায় বৈঠক আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে চিকিৎককে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় আটক নার্সকে ছেড়ে দেয়ায় আন্দোলনের হুমকি দিয়েছে চিকিৎসকরা। এমনকি আজ শনিবার সকাল থেকেই তারা কর্মবিরতি কর্মসূচিতে যেতে পারেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন। তবে নার্স এবং চিকিৎসকের মধ্যে সৃষ্ট অপ্রীতিকর ঘটনা নিয়ে আজ বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। সংসদ সদস্য এ্যাড. তালুকদার মো. ইউনুস এর উপস্থিতিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এই বৈঠক করবেন বলে জানিয়েছেন পরিচালক ডা. এসএম সিরাজুল ইসলাম।
এর পূর্বে গত বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শেবাচিম হাসপতালের শিশু বহিঃর্বিভাগে আগে রোগী দেখানোকে কেন্দ্র করে চিকিৎসকের উপর হামলা চালায় একই হাসপাতালের স্টাফ নার্স এলিজা আক্তারের স্বামী শাহ আলম ভুঁইয়া। এর প্রতিবাদে চিকিৎসকরা বিক্ষোভ করলে ঘটনাস্থল হতেই হামলাকারী শাহ আলম ভুইয়াকে আটক করা হয়। এমনকি পরবর্তীতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নার্স এলিজাকেও তার আট মাসের শিশু সন্তান সহ পুলিশেল হাতে তুলে দেন।
এর প্রতিবাদে ওই দিন রাত ৮টার দিকে হাসপাতালের ৭৭ জন ডিউটি নার্স সহ অন্যান্য শিক্ষনবিশ নার্সরা কর্মবিরতি পালনের পাশাপাশি স্টাফ নার্স এলিজার মুক্তির দাবীতে ডিপ্লোমা নার্সেস এ্যাসোসিয়েশন কার্যালয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ এবং বিক্ষোভ করেন। খবর পেয়ে রাতেই বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. তালুকদার মো. ইউনুস সহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। সেই সাথে সহকর্মী নার্সদের দাবীর মুখে এবং শিশু সন্তানের বিষয়টি বিবেচনায় এনে মানবিক কারনে রাত সাড়ে ১১টার দিকে নার্সকে ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু এতে ক্ষুব্ধ হন চিকিৎসকরা। এমনকি নার্সকে ছেড়ে দেয়ার প্রতিবাদ এবং ঘটনার বিচার দাবীতে আজ শনিবার সকাল থেকে কর্মবিরতি পালনের হুমকিও দেন তারা।
হাসপাতাল পরিচালক ডা. এসএম সিরাজুল ইসলাম বলেন, অন্যায় ভাবে একজন চিকিৎসকের গায়ে হাত তুললে তা নিয়ে আন্দোলন করাটা স্বাভাবিক। তাছাড়া আমি নিজেও একজন চিকিৎসক। তাই একজন চিকিৎসক হয়ে অপর চিকিৎসকে অপমান সহ্য করা সম্ভব নয়। তবে আন্দোলন করে সব সমস্যা সমাধান সম্ভব নয়। এই ঘটনাকে ইস্যু করে চিকিৎসক কিংবা নার্সরা কর্মবিরতি পালন করলে তাতে দুর্ভোগ পোহাতে হবে সাধারন রোগীদের।
তিনি বলেন, রোগীদের ভোগান্তিতে ফেলা যাবে না। তাই বিষয়টি সমাধানে আজ শনিবার সকাল ৯টার দিকে সংসদ সদস্য এ্যাড. তালুকদার মো. ইউনুস চিকিৎসকদের নিয়ে বসবেন। এখানে হাসপাতাল এবং কলেজের সিনিয়র চিকিৎসক ছাড়াও চিকিৎসকদের সংগঠন বিএমএ’র নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন। এই সভার মাধ্যমে হাসপাতালে চলমান সংকট দুর হবে বলে আশাব্যক্ত করেন তিনি।