নাজির মহল্লায় আ’লীগ নেতা দখলে নিয়েছে অসহায় নারী ও প্রতিবন্ধি কন্যার মাথা গোজার ঠাঁই

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ অসহায় মা এবং তার প্রতিবন্ধি মেয়ের নামে খাস জমি বন্দোবস্ত নেয়া হলেও সেই জমিতে শেষ পর্যন্ত থাকতে পারলেন না তারা। বরিশাল সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ভিপি আনোয়ার হোসেন’র সন্ত্রাসী বাহিনী তাদের খাস জমির ঘরটি ভেঙ্গে দিয়ে সেখান থেকে উৎখাত করে দিয়েছে। গতকাল রবিবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর নাজির মহল্লা এলাকায় এই দখল সন্ত্রাসের ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।
জমি থেকে উৎখাত ও সন্ত্রাসী হামলার শিকার ফিরোজা বেগম জানান, গত ৩৫ বছর পূর্বে তার এবং তার প্রতিবন্ধি মেয়ের পূণর্বাসনের জন্য তাদের নামে নগরীর নাজির মহল্লায় কিছু খাস জমি বন্দবস্ত এনে দেন আ’লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন। এর পর থেকেই তারা সেখানকার ঢাকাইয়া বাড়িতে বসবাস করে আসছেন। তাবে তাদের নামে সরকারী খাস জমি বন্দবস্ত নিলেও প্রতি মাসে ১৮শ টাকা করে ভাড়া দিতে হতো ভিপি আনোয়ারকে।
এভাবে চলতে থাকলে ৩৫ বছর পর ঐ জমিটি পুরোপুরি দখলের পায়তারা চালান সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর ছালমা আক্তার শিলার স্বামী আ’লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন। এজন্য তাদের বিভিন্ন সময় জমিটি দখল মুক্ত করে বাড়ি ছেড়ে চলে যাওযার নির্দেশ দেন তিনি।
এর প্ররিপ্রেক্ষিতে গতকাল বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে ক্ষমতাসিন দলের একদল ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী গৃহপরিচারিক ঐ অসহায় নারী এবং তার প্রতিবন্ধি মেয়ের একমাত্র মাথা গোজার স্থান সরকারী খাস জমির ঘরটিতে হামলা এবং ভাংচুর চালায়। ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা জমি থেকে তাদের উৎখাতের পাশাপাশি ঘরটি ভেঙ্গে ফেলেছে বলে অভিযোগ করেন অসহায় ফিরোজা বেগম।
এদিকে খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও সরকারী খাস জমি দখলে বাধা দেয়নি তারা।
জানতে চাইলে আনোয়ার হোসেন দাবী করেন ঐ জমির মালিক তিনি। ফিরোজা নামের মহিলা তার ঘরে গৃহপরিচারিকার কাজ করত। সেই কারনে তাকে এবং তার প্রতিবন্ধি মেয়েকে ঘরটিতে থাকতে দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারাই ঐ জমিটি তাদের নিজের বলে দাবী করে আসছিলো। এজন্যই তিনি তার জমিটির অবৈধ দখল মুক্ত করেন। তবে জমিটি তার নিজের বলে দাবী করলেও এর কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেননি তিনি।