নলছিটি প্রেসক্লাব উদ্বোধন নিয়ে সংবাদকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ

নলছিটি প্রতিবেদক॥ উপজেলায় কর্মরত অধিকাংশ সংবাদকর্মীদের বাদ দিয়ে বিতর্কিত নলছিটি প্রেসক্লাবের উদ্বোধন। নলছিটি পৌরসভার জমি ও সরকারী টাকায় নির্মিত প্রেসক্লাব গতকাল শুক্রবার উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী আলহাজ্ব আমির হোসেন আমু। এই উদ্বোধনকে ঘিরে নলছিটির অধিকাংশ সংবাদকর্মীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
নলছিটি উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্্র মিডিয়ার সংবাদকর্মী সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ দশ বছর যাবৎ প্রেসক্লাবের সভাপতির পদ কুক্ষীগত করে রাখা এনায়েত করিমের ব্যক্তিগত ইচ্ছা ও সিদ্বান্তে প্রেসক্লাবের উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। নলছিটিতে আশির দশকে সাংবাদিকতা শুরু হওয়ার পর প্রবীন সাংবাদিক আঃ মান্নান ফারুক্কী নলছিটিতে প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠাতা করেন। পরবর্তীতে ৯০ দশকের পর থেকে আধুনিক সাংবাদিকতার পথিকৃত মু.মনিরুজ্জামান মুনিরের নেতৃত্বে প্রেসক্লাব পূর্ণগঠন করা হয় এবং তারই হাত ধরে ২০০৪ সালে এনায়েত করিম সাংবাদিকতায় প্রবেশ করেন। এরপর থেকে অদ্যাবধি তিনি কূটকৌশল অবলম্বন করে প্রেসক্লাবকে কুক্ষীগত করেন। নিজের একনায়তন্ত্র সভাপতি পদ ধরে রাখার জন্য তার নিজস্ব কয়েকজনকে প্রেসক্লাবের সদস্য করেন এবং নলছিটিতে কর্মরত সাংবাদিকদের বড় একটি অংশকে প্রেসক্লাবে অন্তর্ভূক্তির পথ রুদ্ধ করে রাখেন, যা উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানেও প্রতিফলিত হয়েছে।
নলছিটি প্রেসক্লাবের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রবীন সাংবাদিক আঃমান্নান ফারুক্কী, মুঃ মনিরুজ্জামান মুনির, শাহাদাৎ হোসেন মনু, প্রভাষক মেসবাহ উদ্দিন খান রতন, গোলাম মোস্তফা ফিরোজ, গোলাম মাওলা শান্ত, সাইদুল রহমান কবির, মিজানুর রহমান, কামাল হোসেন মাস্টার, সাইদুল ইসলাম, সফিকুল ইসলাম সোহেল, আবুল হাসান, মাহমুদ সুজন, সাইদুল ইসলাম, আজমল হোসেন, আমির হোসেন, সবুজ হাওলাদার প্রমুখ সাংবাদিকদের দাওয়াত দেয়নি।  এতে করে সংবাদকর্মীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।