নথুল্লাহবাদে জমি দখলে গিয়ে গনধোলাইর শিকার ছাত্রলীগ নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ এবার ছাত্রলীগের নেতা-কর্মিদের বিরুদ্ধে বিরোধীয় জমি দখল নিতে ঘরে আমলা ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে নগরীর কাশিপুর ২৯ নং ওয়ার্ডের হযরত শাহজালাল সড়কে এই ঘটনা ঘটে। এসময় সরকারী বিএম কলেজ বাকসু’র কথিত পরিবহন সম্পাদক নূরুল আম্বিয়া বাবু সহ ছাত্রলীগ ক্যাডারদের গনধোলাই দিয়েছে স্থানীয়রা। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। গনধোলাই’র শিকার বিএম কলেজ ছাত্রলীগ নেতা বাবুকে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
জানাগেছে, নগরীর কাশিপুর এলাকার হযরত শাহজালাল সড়কে সিএস রেকর্ডীয় মালিক মৃত চারু গাজীর ওয়ারিশগন বংশানুক্রমে বসবাস করছে। কিন্তু ওই জমি মালিকানা দাবী করে দখলের চেষ্টা করে স্থানীয় লুৎফর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যরা। পৈত্তৃক সূত্রে জমির মালিকানা দাবীদার মালেক গাজী ও তাদের অংশীদাররা বাদী হয়ে ১৯০৩ সনে লুৎফর রহমান ও তাদের শরিকদের বিবাদী করে আদালতে মামলা করেছে। আদালত বাদী মালেক গাজীর পক্ষে রায় দেন। রায়ের বিরুদ্ধে লুৎফর রহমান ও তার ওয়ারিশরা আপিল করে। কিন্তু আপিল গত ৪ মার্চ পুনরায় বিচারের জন্য হাইকোর্ট বিভাগে পাঠিয়েছে বেঞ্চ। আদালতে মামলা নিস্পত্তি না হওয়ার আগে গতকাল মঙ্গলবার জমি দখলের পায়তারা চালায় ছাত্রলীগের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা। লুৎফর রহমানের ছেলে ঢাকায় বসবাসকারী মাসুদুর রহমানের পক্ষে জমির প্রায় ৩০ পরিবারকে উচ্ছেদ করে জমি দখলের নেতৃত্ব দেয় নূরুল আম্বিয়া বাবু। এসময় মাসুদুর রহমানের প্রতিনিধি অবসর প্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক সহ ৫০/৬০ জন ছাত্রলীগের দখবাজরা জমি দখলে তান্ডব চালায়। তারা সেখানে মালেক গাজীর ঘর ভাংচুর, লুটপাট ও জমিতে রোপনকৃত গাছ-পালা কর্তন করে। এসময় জমিতে বসবাসকারী নারী-পুরুষ তাদের প্রতিহত করে। এক পর্যায় গনধোরাই দিলে নুরুল আম্বিয়া বাবু ও আব্দুর রাজ্জাক সহ দখল সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। এসময় র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। আহত নুরুল আম্বিয়া বাবুকে শেবাচিম হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। তার দাবী জমি দখলে বাধা দেয়ায় স্থানীয় সন্ত্রাসীরা তাকে কুপিয়ে জখম করেছে।