নগরী বেপরোয়া অটোরিক্সা শ্রমিকদের প্রশ্নবিদ্ধ কর্মসুচী পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ অটোরিক্সা শ্রমিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে ধর্মঘট পালন করেছে অটোরিক্সা শ্রমিকরা। এর পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন পালনের নামে বিক্ষোভ মিছিল এবং অটোরিক্সা ভাংচুর চালিয়েছে তারা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে নগরীর জিলা স্কুল মোড় ও নথুল্লাবাদ এলাকায় এই ভাংচুর চালায় তারা। এতে যাত্রী সহ সাধারন অটো চালক কম বেশি আহত হয়েছে। পরে পুলিশ তাদের ধাওয়া ও লাঠি চার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। সূত্রমতে, সোমবার সকালে অভিযানে আটককৃত অবৈধ অটোরিক্সা নগর ভবনের সামনে এবং গ্যারেজ থেকে ছিনিয়ে আনতে যায় কথিত সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এবং জেলা ও মহানগর ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা শ্রমিক কল্যান সংস্থার উপদেষ্টা মাসুদ সিকদার ও সমিতির সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান সহ তাদের উৎশৃঙ্খল শ্রমিকরা। এসময় বিসিসি কর্মীরা মাসুদ সিকদার ও মনিরকে গনধোলাই দেয়ার পাশাপাশি মাসুদকে ধরে নিয়ে যায়। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এদিকে সোমবারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল সকাল ৬টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত নগরীতে অটোরিক্সা ধর্মঘট পালন করে শ্রমিকরা। সেই সাথে বেলা সাড়ে ১০টার দিকে অশ্বিনী কুমার হলের সামনে থেকে বিক্ষোভের প্রস্তুতি নেয় শ্রমিক কল্যান সংস্থার নেতা-কর্মীরা। বঙ্গবন্ধুর জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে পুলিশ শ্রমিকদের আন্দোলন থেকে বিরত থাকার জন্য বলেন। চতুর শ্রমিকরা প্রতিবাদ এবং বিক্ষোভ মিছিলের ব্যানারে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে শ্লোগান দিয়ে মিছিল নিয়ে জিলা স্কুল মোড়ে পৌছায়। জিলা স্কুল মোড়ে পৌছা মাত্রই সমিতির উপদেষ্টা এবং বিএম কলেজের সাবেক কথিত ছাত্রলীগ নেতা মাসুদ সিকদার ও সমিতির সভাপতি মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে সংগঠনের উৎশৃঙ্খল শ্রমিকরা ধর্মঘট উপেক্ষা করে চলাচলরত অটোরিক্সায় ভাংচুর চালায়। খবর পেয়ে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ জিলা স্কুল মোড়ে সভাপতি মনির ও উপদেষ্টা মাসুদ সহ তাদের উৎশৃঙ্খল শ্রমিকদের ধাওয়া এবং লাঠি চার্জ করে। এক পর্যায় ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায় তারা। জিলা স্কুল মোড় এবং ক্লাব রোড ছাড়াও অটোরিক্সা শ্রমিক কল্যান সংস্থার উৎশৃঙ্খল শ্রমিকরা নগরীর নথুল্লাবাদ, লঞ্চঘাট ও রূপাতলী এলাকায় রাস্তায় চলাচলরত অটোরিক্সায় হামলা ও ভাংচুর চালায়। এসময় চালকদের পাশাপাশি আহত হয় বেশ কয়েকজন যাত্রী। জানতে চাইলে জেলা ও মহানগর ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা শ্রমিক কল্যান সংস্থার সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান পরিবর্তনকে বলেন, আজ (গতকাল) বঙ্গবন্ধু’র জন্মদিন তা আমাদের স্মরনে ছিলো না। তাই বিক্ষোভ মিছিল এবং ধর্মঘট ডেকেছিলাম। সদর রোডে মিছিলের প্রস্তুতি কালে পুলিশ তাদের বিষয়টি অবহিত করলে তাৎক্ষনিক ভাবে কর্মসূচী স্থগিত করেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে আমরা শ্রমিক নেতা-কর্মীরা র‌্যালী করি। এসময় জিলা স্কুলের মোড়ে কিছু শ্রমিক র‌্যালী’র মধ্যে থেকে অটোরিক্সায় হামলা চালিয়েছে। তবে পুলিশ তাদের লাঠি চার্জ করেনি। তারা ধাওয়া দিলে শ্রমিকরা আতংকে পালিয়ে যায়। তবে দু-এক জায়গায় নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে অটোরিক্সায় যাত্রী বহন করায় শ্রমিকরা অটো ভাংচুর করেছে বলে স্বীকার করেন মনির।