নগরীর সন্তান আলম হতে পারেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ভবিষ্যত উজ্জল তারকা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ কামরুল ইসলাম রাব্বির মতো আরো এক ক্রিকেটার শুধু দেশ নয়, আন্তজার্তিক ক্রীকেটাঙ্গনে এই বরিশালবাসীর মুখ উজ্জল করবে তরুন প্রতিভাবান ক্রিকেটার এই নগরীর সন্তান নুরুজ্জামান আলম। তার ব্যাট দিয়ে দ্যুতি ছড়িয়ে মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখবে ক্রিকেটাঙ্গনকে। বর্তমানে বরিশাল জেলা ক্রিকেট দল’র অধিনায়ক নুরুজ্জামান আলম ধারবাহিকভাবে তার ব্যাটিংয়ের নৈপুন্য প্রদর্শন করে জাতীয় দলের নির্বাচকদের নজর কেড়েছেন। খুব শীঘ্রই দেশের হয়ে খেলার পূর্ব ধাপ হাই পারফমেন্স দলেও সুযোগ পেতে যাচ্ছেন তিনি। এতে তাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখা শুরু করেছে এই নগরীর ক্রিকেটাঙ্গন। বরিশাল বিভাগীয় ক্রিকেট দলের ম্যানেজারসহ জেলা দলের ক্রিকেটারদের আশাবাদ, নুরুজ্জামান আলম গত ৭/৮ বছর ধরে বরিশাল জেলা দলের হয়ে পারফর্মের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে তার প্রতিভা জানান দিয়েছেন। এমনভাবে চললে খুব দ্রুতই জাতীয় দলের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাঙ্গন মাতাবে সে। আর তার জন্য গর্বিত হবে নগরীসহ বরিশালবাসী। বরিশাল জেলা ক্রিকেট দলের আলমের সতীর্থ ক্রিকেটাররা জানান, ছেলে বেলা থেকেই আলম শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত স্টেডিয়ামের এক চেনা মুখ। ক্রিকেটই তার ধ্যান-জ্ঞান ও শ্রদ্ধা ভালোবাসা। তাই নিজেকে গড়ে তুলেছে প্রতিভাবান ক্রিকেটার হিসেবে। সময়ের সাথে সাথে নিজেকে বরিশাল জেলা দলের সেরা পারফরমার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এমনকি দলের হাল বর্তমানে তার হাতেই রয়েছে। প্রয়োজনী প্রতিপক্ষের বোলারদের উপর চড়াও হওয়া, আবার দলের প্রয়োজনে সকল দায়িত্ব নিজের কাধে তুলে নিয়ে সফলতা বের করে এনে নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড়ের তকমাও নিজের করে নিয়েছেন। তাই দেশের অনুর্ধ্ব-১৭ দলে সুযোগ পেয়েছিল নুরুজ্জামান আলম। সেখানে তার নজরকাড়া ব্যাটিং তাকে সফলতার আরো একটি সিড়িতে নিয়ে যায়। সুযোগ মেলে দেশের হয়ে অনুর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ দলের সদস্য হওয়ার। আন্তর্জাতিক ক্রীকেটাঙ্গনে তার ব্যাটিং দ্যুতি প্রদর্শনের সুযোগের বাঁধা হয়ে দাড়ায় এপেনডিসাইটিস’র অস্ত্রপচার। বিশ্বকাপ শুরুর মধ্যে অস্ত্রপচারের ধকল কাটিয়ে শারিরিক ফিটনেস ধরে রাখা সম্ভব হবে না। তাই নুরুজ্জামান আলমকে বাদ পড়তে হয়েছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে মেলে ধরার সুযোগ হাত ছাড়া হয়ে যাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েনি সে। নিজের উপর আত্মবিশ্বাস, ক্রিকেটের প্রতি শ্রদ্ধ-ভালোবাস ও প্রতিভা তাকে আরো পরিনত করেছে। সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরেই নিজেকে মেলে ধরেছেন আগের চেয়ে আরো দক্ষতায়। ব্যাটে রানের ফুলঝুড়িয়ে ছুটিয়েছেন। প্রতিকুল পরিস্থিতি ধৈর্য’র প্রমান দিয়ে চলেছেন বর্তমান জাতীয় ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশীপে। বরিশালের হয়ে ২০১১/১২ সাল থেকে নিয়মিত খেলছে সে। ধারাবাহিক সফলতায় দলীয় প্রয়োজনীয় হয়ে উঠা নুরুজ্জামান আলম এখন বরিশাল জেলা দলের অধিনায়ক।
সতীর্থরা জানায়, শুধু চ্যাম্পিয়নশীপেই নয়। নুরুজ্জামান আলম ঢাকা প্রিমিয়ার লীগেও তার ব্যাটিংয়ের ঝলক দেখিয়েছেন। গত চার বছর ধরে প্রিমিয়ার লীগের দল কলাবাগানের হয়ে খেলছেন আলম। লীগে তার পাঁচটি অর্ধশতক’র ইনিংস রয়েছে।
সতীর্থরা বলেন, আলম শুধু নির্ভরযোগ্য ব্যাটসমানই নয়। সে তুখোড় ফিল্ডারও। খুব সহজেই তার হাত গলে বল সীমানা পার হতে পারে না। খুব কম ক্যাচ মিস করেছেন আলম।
এমন অনেক ম্যাচে প্রায় সকল ব্যাটসম্যান ব্যর্থ হয়েছে। কিন্তু আলম পিরামিড’র মতো ক্রিজে দাড়িয়ে সীমানা পার করছেন বল। একাই দলকে টেনে নিয়ে গেছেন, বিজয়ের কাংখিত লক্ষ্য পূরন করেছেন। ম্যাচ বাচানো ইনিংস খেলা নুরুজ্জামানের জন্য নতুন কোন বিষয় না বলে জানান সতীর্থরা।
বিগত জাতীয় লীগে বরিশালের হয়ে ১০৩ রানে অপরাজিত থেকে আলম উপহার দিয়েছে দারুন এক ইনিংস। একই লীগে খুলনার বিপরীতে ৬৮ রানে অপরাজিত থেকে ম্যাচ বাচানো ইনিংস উপহার দেয় বরিশাল জেলা দলকে। এ বছর জেলা দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়ার পর আলম যোগ্য নেতা ও সেরা পারফরমার হিসেবে প্রমান করেছেন। প্রতিটি মাচেই তার ছিল ধারাবাহিকতা। চলমান জাতীয় চ্যাম্পিয়ন্সশীপ লীগের গত ২৩ নভেম্বর’র ম্যাচে ফরিদপুরের বিপক্ষে ১১৫ রানে অপরাজিত ইনিংশ খেলে দলের বিজয় নিশ্চিত করেছে আলম। খেলায় ২৬৮ রানের লক্ষ্য ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৪০ রানে ৪ উইকেটের পতন ঘটে বরিশাল জেলা দলের। পরাজয় যখন নিশ্চিত ভেবেছিল সবাই। সেখানে বুক চিতিয়ে একাই লড়ে গেছেন আলম। দলকে জিতিয়ে এনেছেন দুই উইকেটে। আজ পাবনা ভেন্যুতে আলম তার দল নিয়ে মুখোমুখি হবে দিনাজপুর ক্রিকেট দল’র। এই ম্যাচেও তাকে নিয়ে আশাবাদী সকলেই।
দক্ষ এই খেলোয়ার এর বিষয়ে টিম ম্যানেজার মঈনুজ্জামান মঈন বলেন, বরিশাল জেলা দলের বর্তমান অধিনায়ক নুরুজ্জামান আলম জাতীয় দলের হয়ে খেলার যোগ্যতা সম্পন্ন। সে সুযোগ পেলে শুধু দেশেরই নয়, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে খ্যাতি অর্জন করতে পারবে। তাকে নিয়ে দুই বছর পূর্ব থেকে আমরা স্বপ্ন দেখছি জানিয়ে মঈন বলেন, একজন খেলোয়ার ধারবাহিকতা সব সময় রক্ষা করতে পারনে না। কিন্তু নুরুজ্জামান আলম ধারাবাহিকভাবে দলের পারফর্ম করছে। তার শারিরিক ফিটনেস অসামান্য। যে কোন পরিস্থিতিতে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারে খুব সহজেই। সহজেই সে ক্লান্ত হয় না। যার প্রমান বর্তমানে চলমান জাতীয় ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নস লীগে দেখা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে জাতীয় দলের নির্বাচকদের নজর কেড়েছে সে। নির্বাচকরা আলোচনার মাধ্যমে জানিয়েছে, তার পারফর্মের ধারবাহিকতা রক্ষা হলে তাকে হাইপারফরমেন্স টিমে নেয়া হবে। তাই আমরা আশাবাদী খুব দ্রুত সময়ে হাই পারফরমেন্স টিমে গিয়ে নিজের দক্ষতা ও যোগ্যতা প্রমান করে জাতীয় দলে সুযোগ পাবে নুরুজ্জামান আলম।
মঈন আরো বলেন, দক্ষতা ও যোগ্যতার সাথে সাথে নির্বাচকদের কাছে তা তুলে ধরার জন্য সংগঠক’র প্রয়োজন রয়েছে। বিসিসি’র পরিচালক হিসেবে নির্বাচিত আলমগীর হোসেন আলো’র মতো দক্ষ, প্রভাবশালী ও ক্রীড়াপ্রেমী সংগঠকও বরিশালে রয়েছে। তারা যদি নুরুজ্জামান আলমকে নিয়ে একটু উদ্যোগী হন। তাহলে জাতীয় দল একজন দক্ষ খেলোয়ার পাবে। আর বরিশালবাসী পাবে গর্বিত হওয়ার সুযোগ।