নগরীর জর্ডন রোডে দখল সন্ত্রাস বিসিসি’র একের পর এক নোটিশের পরেও থামছে না ভবন নির্মাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বিসিসি’র একের পর এক নোটিশের পরেও থামছে নগরীর জর্ডন রোডে প্লান বহির্ভুত বহুতল ভবন নির্মান কাজ। অদৃশ্য ক্ষমতা বলে বিসিসি’র নোটিশের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে ইতোমধ্যে অবৈধভাবে জমি দখল করে চারতলা ভবন নির্মান সম্পন্ন করেছেন স্থানীয় ফয়েজুর রহমান। নির্দেশ উপেক্ষাকারী অদৃশ্য ক্ষমতাধর দখলবাজ ফয়েজুর রহমানের প্রভাব প্রতিপত্তির কাছে অসহায় হয়ে পড়েছেন স্থানীয়রা।
সূত্রে জানাগেছে, নগরীর ১০ নং ওয়ার্ডের জর্ডন রোডের ভতরে অবৈধ ভাবে জমি দখল করে বহুতল ভবন নির্মান করছেন ঐ এলাকার মৃত কাজী ফিরোজুর রহমান’র ছেলে কাজী মো. ফয়েজুর রহমান। চলতি বছরের শুরু থেকেই নিজের জমির পাশাপাশি বিসিসি’র প্লান বহির্ভুত চলাচলের প্রায় ২ ফুট জমির মধ্যে অবৈধ ভাবে ভবন নির্মান করছেন। তৎকালীন সময় স্থানীয়রা এর প্রতিবাদ করলেও কোন কাজ হয়নি। উল্টো জমি দখলে বাধা দেয়ায় একই এলাকার সৈয়দ মো. মোস্তাক হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে জীবন নাশের হুমকি দেয় সন্ত্রাসী ও ভূমি খেকো ফয়েজুর রহমান। এ ঘটনায় হুমকি প্রাপ্ত ঐ ব্যক্তি গত ২৫ ফেব্রুয়ারী কোতয়ালী মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন।
এদিকে ঘটনার পর পরই অবৈধ ভাবে জমি দখলের ঘটনায় স্থানীয়রা বিসিসি কর্তৃপক্ষের নিকট অভিযোগ দিলে নগর কর্তৃপক্ষ বিষয়টি তদন্ত করেন। পরবর্তীতে অভিযোগের সত্যতা পেলে গত ২৫ ফেব্রুয়ারী বিসিসি/ইডি/উচ্ছেদ/২০১৫/৯২/১(৪) স্মারকে অবৈধ দখলদার মো. ফয়েজুর রহমানকে প্লান বহির্ভুত অংশের ভবন অপসারনের নির্দেশ দিয়ে একটি নোটিশ প্রেরণ করেন। কিন্তু নোটিশের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে ভবন নির্মান কাজ চালিয়ে যায় দখলবাজ ফয়েজুর রহমান। পরবর্তীতে গত ৮ জুন পূনরায় বিসিসি/ইডি/উচ্ছেদ/২০১৫/২৯১/১(৪) স্মারকে দ্বিতীয় বার প্লান বহির্ভুত অংশ অপসারনের নির্দেশ দিয়ে আরো একটি নোটিশ জারি করা হয়। কিন্তু এর পরেও বিষয়টি কর্ণপাত হয়নি দখলবাজ মো. ফয়জুর রহমানের। সর্বশেষ গত ১৩ জুলাই আরো একটি নোটিশ দেয় বিসিসি কর্তৃপক্ষ। বিসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত এ নোটিশটি পাওয়ার তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্লান বহির্ভুত ভবনের অংশ অপসারনের নির্দেশ দেয়া হয়।
সরেজমিনে দেখা গেছে, নোটিশ হাতে পাওয়ার পর তিন দিনের স্থলে ১ মাস পার হয়ে গেলেও অপসারন করা হয়নি প্লান বহির্ভুত অবৈধ ভাবে দখল দিয়ে নির্মিত অবশিষ্ট অংশ। বরং আইন কানুনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে সেখানে ইতোমধ্যে ৪তলা পর্যন্ত নির্মান সম্পন্ন করা হয়েছে।
এদিকে নোটিশ কিংবা নির্দেশের তোয়াক্কা না করে ভূমি দস্যুতার ন্যায় ভবন নির্মান কাজ প্রায় সম্পন্ন করলেও এর বিরুদ্ধে আইনগত কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না বিসিসি কর্তৃপক্ষ। জবর দখলকারী ফয়জুর রহমান প্রকাশ্যে দম্ভক্তি করে বলেন, এই ভবন ভাঙ্গা হবে না। আর প্রশাসনও আমার কিছুই করতে পারবে না। তার এমন দম্ভক্তির কাছে অসহায় হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী। তারা এ বিষয়ে নগর পিতা আহসান হাবিব কামাল এবং পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করেন।