নগরীতে ট্রাক চাপায় কলেজ ছাত্র নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর বান্দরোডে ট্রাকচাপায় আহত এক কলেজ ছাত্র বরিশাল শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। তবে দুর্ঘটনায় আহত আরো দুই ছাত্রকে শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল সোয়া ৩টায় মৃত্যু হওয়া কলেজ ছাত্রের নাম লোকমান হোসেন (১৮)। সে ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া গ্রামের আব্দুল জলিল হাওলাদারের ছেলে এবং সরকারী বরিশাল কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র। এদিকে দুর্ঘটনায় হতাহতের ঘটনায় ঘাতক ট্রাক সহ চালক এবং হেলপারকে আটক করা হয়েছে। কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ দুর্ঘটনার পর পরই তাদের আটক করে থানা নিয়ে যায়। মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে শেবাচিম হাসপাতালের ওয়ার্ড মাষ্টার আবুল কালাম আজাদ বলেন, কলেজ ছাত্র লোকমান মোটরসাইকেল যোগে দপদপিয়া থেকে বরিশাল কলেজের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। পথিমধ্যে বেলা ১১টার দিকে বান্দ রোডের সেবা ক্লিনিকের সামনে পেছন থেকে আসা একটি ট্রাক মোটর সাইকেলটিকে চাপা দেয়। এতে লোকমান সহ মোটর সাইকেলে থাকা তিনজন গুরুতর আহত হয়। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে দিলে চিকিৎসাধিন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তবে বাকি দু’জন আশংকা মুক্ত বলে জানিয়েছেন ওয়ার্ড মাষ্টার। কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল কুদ্দুস প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাদ দিয়ে বলেন, কলেজ ছাত্র মোটরসাইকেলর পেছনে ছিলো। তবে মোটর সাইকেল যে চালাচ্ছিল সে চলন্ত মোটরসাইকেলে বসে মোবাইলে কথা বলতে ছিলো। ঠিক তখন পেছন থেকে আসা একটি ট্রাক তাদের ধাক্কা দেয়। ঘটনার পর পরই স্থানীয়দের সহযোগিতায় ট্রাক চালক এবং হেলপারকে আটক করা হয়েছে। তাছাড়া ট্রাকটিকে পুলিশের জিম্মায় নিয়ে আসা হয়েছে। আটককৃতরা হলো, সাতক্ষীরার আবুল কাসেমের ছেলে এবং ট্রাক চালক ইমাম আলী ও হেলপার পুরাতন সাতক্ষীরার শের আলীর ছেলে আমিনুর রহমান। নিহতের ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। এছাড়া আটককৃতদের বিরুদ্ধে আরো একটি মামলা হবে বলে জানান তিনি।