নগরীতে আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহর অবস্থানে নেতা-কর্মীরা উজ্জীবিত

রুবেল খান॥ হঠাৎ করেই বরিশাল আওয়ামী লীগে পালের দোলা লেগেছে। দীর্ঘ দিন পর নগরীতে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও বরিশাল জেলার সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ-এমপির অবস্থানের ফলে এমন পালের দোলা লেগেছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন সংশ্লিষ্টরা। সেই সাথে গত কদিন যাবত আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ’র নিজ দলের পাশাপাশি সামাজিক কর্মসূচিতে অংশ্রহনে নেতা-কর্মীদের মাঝেও চলে এসেছে স্বতস্ফূর্ত ভাব।
জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানায়, ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুল হাসানাত আব্দুল্লাহ-এমপি বরিশালের রাজনীতিতে অনেকটা নিরবতা পালন করেন। দলীয় কার্যক্রমের পাশাপাশি বরিশাল নগর কেন্দ্রীক সামাজিক অনুষ্ঠানগুলোতেও তার উপস্থিতি তেমন ছিলো না। ১০ম জাতীয় নির্বাচনের পর সর্বশেষ সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরণ’র মরদেহ নিয়ে বরিশালে আসেন। এরপরে অবশ্য আরো কয়েকবার এই নগরীতে আসলেও রাজনৈতিক কিংবা সামাজিক কোন কর্মকান্ডে তার অশংগ্রহন ছিলোন।
দলীয় নেতা-কর্মীদের দেয়া তথ্য মতে, শারীরিক অসুস্থতা, কেন্দ্রীয় কার্যক্রমে ঢাকায় অবস্থান, সংসদ অধিবেশন সহ বিভিন্ন কারনে বরিশাল নগরীতে তেমন আসা হতোনা তার। যে করনে দলীয় কর্মসূচিতেও তার অংশগ্রহন ছিলোনা। ফলে জেলা আওয়ামী লীগ বা সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের প্রতিটি কর্মসূচিতেই জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাাড. তালুকদার মো. ইউনুস-এমপি সভাপতি অথবা প্রধান অতিথির অসন গ্রহন করেন। আবার কোন কোন স্থানে বাবার স্থানে তার সুযোগ্য সন্তান ও নগর আওয়ামী লীগের তরুন এবং বলিষ্ঠ রাজনীতিবিদ সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকেও দেখা গেছে। তার পরেও বরিশাল জেলা এবং মহানগর আওয়ামীলীগের কর্মসূচি যেন কোন একটি নেই এর মধ্যে দিয়েই অনুষ্ঠিত হয়।
দীর্ঘ দিন এমন অবস্থা চলতে থাকলে হঠাৎ করেই বরিশাল নগর কেন্দ্রীক দলীয় এবং সামাজিক কর্মকান্ডে দক্ষিণাঞ্চল আওয়ামী লীগের অভিভাবক ক্ষ্যাত জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ’র অংশগ্রহন লক্ষনিয় হয়ে দাড়িয়েছে। এজন্য তার দলের নেতা-কর্মীদের মাঝেও স্বতস্ফূর্ত ভাব ফিরে আসতে দেখা গেছে।
খোজ নিয়ে জানাগেছে, বরিশালে এসে ইতোপূর্বে তিনি শেবাচিম হাসপাতালে স্বাস্থ্য উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় অংশগ্রহন করেন। সেখানে মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগ এবং স্বাচিপ নেতাদের সাথে দলীয় বিষয়েও আলোচনা করেন। তাছাড়া সদ্য প্রয়াত সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু’র বড় বোনের মিলাদ অনুষ্ঠানেও অংশগ্রহন করেছেন। তাছাড়া জেলা আইনজীবী সমিতি আয়োজিত অনুষ্ঠানেও দেখা মেলে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারনী মহলের এই নেতার। শুধু তাই নয়, দীর্ঘ দিন পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বরিশাল জেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা। আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ’র অংশগ্রহনে আজ বিকাল ৩টায় নগরীর সার্কিট হাউস মিলনায়তনে এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। এ সভা থেকে জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অনেক কিছুর পরিবর্তন, পরিবর্ধন আশা করেছেন জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ের নেতারা। দলীয় কার্যক্রম, নেতা-কর্মীদের সু-সংগঠিত করা সহ প্রতিটি বিষয়ে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ’র সু-পরামর্শ এবং উপদেশ প্রত্যক্ষ ও পরক্ষ করতে জেলা এবং উপজেলার নেতারা কর্মসূচি অংশ নেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। তাছাড়া নগরীতে কদিন যাবত দলীয় নেতা-কর্মীদের রাজনৈতিক কর্মকান্ডেও সক্রিয়তা দেখা গেছে। বরিশাল নগরীতে কেন্দ্রীয় এই নেতার নিয়মিত পদচারনা এখানকার রাজনীতির প্রেক্ষাপট সম্পূর্ন পরির্বতন করে দিতে পারে বলেও দাবী করেছেন নেতা-কর্মীরা।