নকল ও ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহারে ব্যবসায়ীকে কারাদন্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ শিশুদের জন্য স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের নকল ও ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করে জুস, চকলেট ও কেক তৈরির অভিযোগে একজনকে ৬ মাসের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। এছাড়াও অবৈধভাবে পারফিউমসহ ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য বিক্রির অভিযোগে দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়েছে।
গতকাল শনিবার আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অভিযানে আটক হয় তারা। পরে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী হাকিম হিসেবে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারি কমিশনার কাজী লুৎফুল হাসান দন্ড ও জরিমানার আদেশ দেন।
দন্ডপ্রাপ্ত সিরাজুল ইসলাম হাটখোলার ডেনমার্ক পারফিউমারী এন্ড রেফ্রিজারেশন সেন্টারের মালিক। তার কাছ থেকে নকল ও ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রিত শিশু খাদ্য বিক্রির অভিযোগে পুরান বাজার এলাকার মো. জসিম উদ্দিনকে ২০ হাজার টাকা এবং কাউনিয়া সাবান ফ্যাক্টরীর আব্দুল হালিমের ছেলে ইমরানকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
নির্বাহী হাকিম কাজী লুৎফুল হাসান জানান, হাটখোলার ডেনমার্ক পারফিউমারী এন্ড রেফ্রিজারেশন সেন্টারে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মিশিয়ে শিশুদের জন্য জুস, চকলেট ও কেক তৈরি করা হয় । গোপনে ওই খবর পেয়ে আমর্ড পুলিশ নিয়ে সেখানে অভিযান করা হয়। অভিযানে বিপুল পরিমানের ফ্লেবার, কালার, সেকারীন, স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের নকল মোড়ক উদ্ধার করা হয়েছে। পরে প্রতিষ্ঠান মালিক সিরাজুল ইসলামকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।
পরে ওই প্রতিষ্ঠানের মালামাল পুরাতন বাজার এলাকার জসিম উদ্দিনের বাসায় রেখে বিক্রয় করার অভিযোগে সেখানে অভিযান করা হয়। জসিম উদ্দিনের কাছ থেকে ক্ষতিকর ৪১ প্রকারের শিশু খাদ্য সামগ্রী উদ্ধার করা হয়। আটক জসিম উদ্দিনকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
অপরদিকে একই দল দুপুরে নগরীর কাউনিয়া সাবান ফ্যাক্টরি এলাকায় অভিযান চালায়। অবৈধভাবে সাবান উৎপাদন করায় কারখানার মালিক আব্দুল হালিমের ছেলে ইমরানকে আটক করা হয়। পরে তার কাছ থেকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। জরিমানা দেয়ার পর উভয়ে মুক্তি পেয়েছে। আর সিরাজুলকে সাজা পরোয়ানায় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।