দ্বিতীয় দিনের বাস ধর্মঘটে ভোলার যোগাযোগ ব্যবস্থা অচল ॥ বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের অটো-ট্রাক ভাংচুর

ভোলা অফিস॥ চরফ্যাশনে বাস শ্রমিকদের ওপর হামলা ও ভাংচুরকারীদের বিচার দাবিতে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো বাস ধর্মঘট পালন করেছে জেলা বাস মালিক ও শ্রমিক সমিতি। গতকাল বৃহস্পতিবার  জেলার সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে দূর দূরান্ত থেকে আসা যাত্রীদের। এদিকে ধর্মঘটের মধ্যে ভোলা -চরফ্যাশন আঞ্চলিক মহাসড়ক অবরোধ সৃষ্টি করে দফায় দফায় বিক্ষোভ করে বাস শ্রমিকরা। এসময় ২টি ট্রাক ও ১০টি অটোরিক্সা ভাংচ্রর করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটকে বহনকারী ডিসি পুলের একটি গাড়িতেও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।
এদিকে হামলার নেতৃত্বদানকারী কুতুব জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার ও অবৈধ যান চলাচল বন্ধ করার  আলটিমেটাম দিয়ে সংবাদ সম্মেলণ করেছে বাস মালিক সমিতি। অবিলম্বে তাদের এই দাবি মানা না হলে পুরো জেলার সড়ক যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। অপরদিকে ঘটনার পর বুধবার ৬ জন ও গতকাল বৃহস্পতিবার ৮ জনকে আটক করেছে চরফ্যাশন থানা পুলিশ। এদের মধ্যে বুধবার আটক করা ৬ জনকে টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে। বাকী ৮ জনকে আইনি প্রক্রিয়ার শেষে আদালতে প্রেরণের প্র¯ুÍতি নেওয়া হয়েছে। দুই গ্রুপের মুখোমুখি অবস্থানের কারণে জেলার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা অচল হয়ে পড়েছে।
গতকাল সরেজমিনে দেখা যায়, বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল বাসটার্মিনাল এলাকার ভোলা-চরফ্যাশন আঞ্চলিক মহাসড়কে আড়াআড়ি করে বাস রেখে ও টায়ার জ্বেলে অবরোধ সৃষ্টি করে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এসময় বাস শ্রমিকরা দফায় দফায় বিক্ষোভ করতে থাকে।  রাস্তার দু’পাশে মাল বোঝাই ট্রাকসহ অনেক যানবাহন আটকা পরে। পুলিশের উপস্থিতিতে সকাল সাড়ে ১০ টায় কয়েকটি ট্রাক যাওয়ার চেষ্টা করলে বিক্ষুব্ধ বাস শ্রমিকরা ২টি ট্রাকে ভাংচুর চালায়। এ সময় ট্রাকের সাথে থাকা ডিসি পুলের একটি গাড়িতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এ কপর্যায়ে বাস টার্মিনালের মধ্যের একটি কাউন্টারে ভাংচুর করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন এলাকায় আরো ১০টি অটোরিক্সা ভাংচুর করা হয়েছে।
অন্যদিকে হামলাকারীদের গ্রেফতার ও অবৈধ যানবাহন চলাচল বন্ধের দাবিতে দুপুরে সংবাদ সম্মেলণ করেছে বাস মালিক সমিতি। সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সফিকুল ইসলাম, চরফ্যাশন থানার ওসির ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এবং জরুরী ভিত্তিতে কুতুব জাহাঙ্গীরসহ বাস ভাংচুরকারীদের গ্রেফতারের দাবি জানান। এসময় সমিতির যুগ্ম সম্পাদক এমদাদুল হক সেলিম, পৌর কাউন্সিল ও জেলা শ্রমিক লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. শাহে আলমসহ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য বুধবার দুপুরে যাত্রী ওঠানো নিয়ে চরফ্যাশনে অটো- বোরাক মালিক শ্রমিক সমিতির সাথে বাস শ্রমিকদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় উভয় গ্রুপের ২০ জন আহত হয়। বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম জানান,  অটো- বোরাক মালিক সমিতি সভাপতি ও চরফ্যাশন উপজেলা শ্রমিক লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক কুতুব জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে বিনা উস্কানিতে  ১৫টি বাস ভাংচুর করে। পিটিয়ে আহত করে বাস মালিক ও শ্রমিকদের। ওই রাতেই তারা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সাথে দেখা করে স্মারকলিপি দিয়েছেন।
জেলা প্রশাসক মো. সেলিম রেজা জানিয়েছেন, হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পুলিশ দোষীদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছে। বাস মালিকদের নিয়ে বৈঠক করে মানুষের ভোগান্তি লাগবে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।