ত্রিশ গোডাউনে পাক টর্চারসেল ও বাঙ্কার সংরক্ষণের দাবীতে আন্দোলনে যাচ্ছে মুক্তিযোদ্ধারা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সৈন্যদের টর্চারসেল ও চারটি বাঙ্কার সংরক্ষণের দাবীতে আন্দোলনে যাচ্ছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ও মহানগর কমান্ড। নগরীর বান্দ রোডস্থ ওয়াপদা কলোনিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) জমিতে এই স্মৃতিস্থান সংরক্ষণ নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ। তাছাড়া প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি এই স্মৃতি চিহ্নগুলো সংরক্ষণে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের অধীনে ভৌত অবকাঠামো এবং সৌন্দর্যবর্ধণ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহনসহ বরাদ্দ আসার পরও নানা অজুহাতে কাজ করার পথে বাধাঁ হয়ে দাড়িয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। আর এরই প্রতিবাদে আগামী ২ জানুয়ারী বেলা ১১ টায় ওয়াপদা গেটের সামনে গন সমাবেশের আয়োজন করেছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ও মহানগর কমান্ড। তাছাড়া এই আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করেছে নগরীর মুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক কর্মী ও সুশিল সমাজের প্রতিনিধি এবং রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। গতকাল বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষনা দেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নেতবৃন্দ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পাঠ করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বরিশাল মহানগর কমান্ডার মোকলেসুর রহমান। এসময় তিনি জানান, ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত পানি উন্নয়ন বোর্ড ওয়াপদায় পাকিস্তানী হানাদার বাহীনির সৈন্যদের টর্চারসেল ও চারটি বাঙ্কার সংরক্ষনের জন্য স্থানীয় সরকারের কাছে প্রস্তাব করা হয়। বর্তমান সরকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের কম্পাউন্ডে থাকা দুটি টর্চারসেল ও চারটি বাঙ্কার সংরক্ষন, সীমানা প্রাচীর নির্মান, রাস্তা, সেড র্নিমান ও আলোকসজ্জার জন্য সাড়ে তিন কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়। স্থানীয় সরকারের এই বরাদ্দ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের কাছে আসে। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এই কাজের জন্য টেন্ডারও আহবান করে। এতে নগরীর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জাহানারা এন্টারপ্রাইজ এর সত্বাধিকারী মোস্তাক আহম্মেদ প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ পায়। তিনি আরো বলেন, ঠিকাদার টর্চারসেল ও বাঙ্কার স্মৃতি বাস্তবায়ন প্রকল্পের কাজ করতে গেলে টালবাহানা শুরু করে পানি উন্নয়ন বোর্ড (ওয়াপদা) কর্তৃপক্ষ। নানা অজুহাত দেখিয়ে তারা কাজ শুরু করতে দিচ্ছেনা। ভৌত অবকাঠামো এবং সৌন্দর্য্যবর্ধন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ২০১৯ সালের মধ্যে কাজটি শেষ করার কথা ছিলো। মাসের পর মাস প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে শুধু দুই পক্ষের চিঠি আদান প্রদানই হচ্ছে। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য কাজ শুরু করতে চাইলেও পানি উন্নয়ন বোর্ডই একমাত্র বাধা হয়ে দাড়িয়েছে। তাই এই কাজটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের লক্ষ্যে এই আন্দোলনের ডাক দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ও মহানগর কমান্ড। আর এই গনসমাবেশ থেকে পরবর্তী আন্দোলন কর্মসূচির ঘোষণা দেয়া হবে বলে জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বরিশাল জেলা কমান্ডার শেখ কুতুব উদ্দিন, ডেপুটি কমান্ডার কে.এস মহিউদ্দিন মানিক, বরিশাল সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সভাপতি এ্যাড. এস এম ইকবাল, ডেপুটি কমান্ডার শাহজাহান হাওলাদার, ডেপুটি কমান্ডার (সাংগঠনিক) এনায়েত হোসেন চৌধুরী প্রমূখ।