ঢাকা বরিশাল রুটে বাড়লো লঞ্চ ভাড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ঢাকা-বরিশাল নৌ-রুটের লঞ্চের ঈদ বিশেষ সেবা শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার থেকে সেবা শুরু হলেও দুঃসংবাদ হয়ে দেখা দিয়েছে ভাড়া। সাধারন, দ্বিতীয় ও প্রথম শ্রেনীর যাত্রী ভাড়া ২০/২৫ ভাগ বাড়ানো হয়েছে। ঈদ যাত্রায় ঘরমুখো মানুষকে জিম্মি করে ঢাকা বরিশাল রুটে লঞ্চ ভাড়া বৃদ্ধি করেছে মালিকরা।
রোজার পূর্বে সাধারন ভাড়া ছিল ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা। তবে ঈদে লঞ্চ মালিকরা ডেকের ভাড়া নির্ধারণ করেছেন ২৫০ টাকা করে। যা গতকাল বুধবার থেকে কার্যকর করা হয়েছে। একইভাবে সিঙ্গেল কেবিন ৮০০ থেকে ৯০০ টাকার(এসসি/নন এসি) স্থলে নেয়া হচ্ছে ১ হাজার টাকা থেকে ১ হাজার ১০০ টাকা করে। প্রথম শ্রেনীর দ্বৈত শয্যার কক্ষ ১ হাজার ৬০০ থেকে ৭০০ টাকার(এসসি/নন এসি) স্থলে নতুন রেট ধার্য্য করা হয়েছে ২ হাজার টাকা থেকে ২ হাজার ২০০ টাকা। এছাড়া ভিআইপি কেবিন ৪ হাজার টাকার স্থলে ৫ হাজার টাকা এবং ৫ হাজার টাকার স্থলে ৬ হাজার টাকা নেয়া হচ্ছে। লঞ্চ মালিকদের দাবী তারা স্বাভাবিক সময়ে যাত্রী ভাড়া কম নিয়ে থাকেন এবং ঈদের সময় দুইবারের কারণে সরকার নির্ধারিত ভাড়া নিয়ে থাকেন।
লঞ্চ কাউন্টার সূত্রে জানা গেছে, মালিক সমিতির নির্দেশনায় নতুন ভাড়া বুধবার থেকে কার্যকর করা হয়েছে। ঢাকা থেকে আসার সময় যাত্রীপূর্ন থাকলেও য্ওায়ার সময় খালি লঞ্চ ঢাকা যেতে হয়। এ জ্বালানী তেলের ঘটতি মেটাতে ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ নতুন ভাড়া আগামী ২২ জুলাই পর্যন্ত নেয়া হবে।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ-চলাচল(যাত্রী পরিবহন) সংস্থার সভাপতি মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বলেন, তারা ঈদের আগে সরকার নির্ধারিত ভাড়া নিতেন না। কিন্তু এখন তারা সরকারী ভাড়াই নিবেন। আগে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে কম নেয়া হত, এখন সরকারী রেটই ধার্য হবে। মূলত ডাবল ট্রিপের জ্বালানী খরচ তুলতে তারা এ বাড়তি ভাড়া নিচ্ছেন।
বরিশাল নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ-পরিচালক মোঃ আবুল বাশার মজুমদার জানান, তিনি বুধবার দুপুরে ঢাকা সদর ঘাটে খোজঁ নিয়ে জেনেছেন যাত্রীদের তেমন চাপ নেই। তবে যাত্রী চাপ বাড়তে পারে। সেই সাথে শুরু হবে ঈদ বিশেষ সেবা।
তিনি বলেন, সেবার সময় লঞ্চ মালিকরা সরকারি রেটের নামে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বেশী যাত্রী ভাড়া নিয়ে থাকে। তিনি এক প্রশ্নের জবাবে জানান, ভাড়া সরকার নির্ধারন করেছে। কিন্তু এসি ও ননএসির ভাড়া নির্ধারন না করায় মালিকরা তাদের ইচ্ছামত ভাড়া নিচ্ছে। তিনি বলেন, তারা গতকাল থেকেই অভিযান শুরু করেছেন। যে কোন অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।