টেন্ডারবাজদের লাঞ্ছনার শিকার পলিটেকনিকের অধ্যক্ষ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে দরপত্র গুছ করতে গিয়ে পলিটেকনিক কলেজের অধ্যক্ষকে লাঞ্ছিত করেছে ছাত্রলীগের পরিচয় দেয়া ভাড়াটে টেন্ডারবাজরা। গতকাল মঙ্গলবার পলিটেকনিক কলেজে এই ঘটনা ঘটেছে।
কলেজের কম্পিউটার সহ ইলেকট্রনিক্স মালামাল সরবরাহের প্রায় কোটি টাকার কাজের দরপত্র গুছ করে দিতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ঠিকা নেয়া ছাত্রলীগের পরিচয়ধারী ভাড়াটে টেন্ডারবাজরা প্রশাসানিক ভবন তালাবদ্ধ করে রাখে। এই কারনে সাধারন ঠিকাদাররা দরপত্র জমা দিতে পারেনি।
সূত্রে জানা যায়, গত ১০ জুন ইন্সটিটিউট কর্তৃপক্ষ ৫০ টি কম্পিউটার, ল্যাপটপ ও মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর সেটিং সহ ৯০ লাখ টাকার মালামাল সরবরাহের দরপত্র আহবান করে। মঙ্গলবার বেলা ১২ টা পর্যন্ত ছিল দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময়। কিন্তু জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম শুভ, শাহাদাতুল ইসলাম সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হান্নান বাপ্পি, সহ সভাপতি ইমরান হোসেন, ওলিউল্লাহ অলি, বরিশাল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল ইসলাম রেজা সহ তাদের অনুসারীরা সকাল ১০ টা থেকে প্রশাসনিক ভবনে তালা দিয়ে অবস্থান করে যাতে কোনও ঠিকাদার দরপত্র জমা দিতে না পারে। কিছুক্ষন পর অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ড. মোঃ নুরুল ইসলাম বিষয়টি লক্ষ্য করে দারোয়ানকে গেট খুলে দেয়ার নির্দেশ দেয়। এই সময় গেট তালাবদ্ধ রাখার কারন উপস্থিত ছাত্রলীগ নেতাদের কাছে জানতে চায়। তখন অধ্যক্ষকে গালি দেয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে।
বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, ওই ছাত্রলীগ নেতারা গ্লোবাল ব্র্যান্ড নামের সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে ১ লাখ টাকার বিনিময়ে কাজ গুছ করে দেয়ার চুক্তিবদ্ধ করেছে।
কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি শাখাওয়াত হোসেন জানান, ঝামেলার কথা শুনে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে।
কলেজ অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ড. মোঃ নুরুল ইসলাম জানান, সকল ঠিকাদাররা দরপত্র জমা দেয়ার স্থান ইন্সটিটিউটের প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে কিছু ছেলেরা অবস্থান নেয়। এর কারন জানতে চাইলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে উল্টা-পাল্টা কথা বার্তা বলতে শুরু করে। পরে সম্মান বাঁচাতে সেখান থেকে আমি চলে আসি।