টিআইবি’র প্রতিবেদন ॥ পাসপোর্ট অফিসে ৭১ ভাগ সেবাগ্রহীতা দুর্নীতির-অনিয়মের শিকার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসে ৭১ দশমিক ১ ভাগ সেবাগ্রহীতা অনিয়ম, দূনীতি ও হয়রানীর শিকার হয়। যার মধ্যে ৫৪ ভাগ সেবাগ্রহীতা ঘুষ দেয়। এছাড়া ৩২ দশমিক ৩ ভাগ সেবা গ্রহীতার সময় অপচয়ের শিকার হয়। অপরদিকে দশমিক ৬ ভাগ সেবা গ্রহীতার অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণার শিকার হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় বরিশাল বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিসের পাসপোর্ট সেবায় সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় শীর্ষক ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাশে (টিআইবি) গবেষনা প্রতিবেদনের উপর এক সাংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে টিআইবি’র রিচার্জ এন্ড পলিসি’র অ্যাসিসট্যান্ড মো. আলী হোসেন’র গবেষনায় আরো উল্লেখ্য করা হয়, বরিশাল পাসপোর্ট অফিসের সেবার নির্ধারিত ফি’র বাহিরে গড়ে প্রতি সেবাগ্রহীতার কাছ থেকে ঘুষ সরুপ ১৮৫৪ টাকা নেয়া হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে নতুন পাসপোর্ট আবেদকারীদের মধ্যে ৮৯ দশমিক ৪ ভাগকে গড়ে ৮৯৬ টাকা ঘুষ দিতে হচ্ছে। এমনকি পুলিশ প্রতিবেদ প্রণয়নে পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চ (এসবি) কর্তৃক আবেদনপত্রে অযথা ত্রুটি খুজে বের করার চেস্টা বা ভয় দেখিয়ে ঘুষ নেয়া হচ্ছে। এখানে সঠিক সময় পাসপোর্ট বিতরণ করা হচ্ছে না। সেক্ষত্রে গড়ে ৮ দিন বিলম্ব হচ্ছে।
গবেষনায় দেখা গেছে, বরিশাল পাসপোর্ট অফিসে আসা সেবাগ্রহীতাদের মধ্যে ৫৬ দশমিক ৩ জনকে দালালের সহযোগীতা নিতে হচ্ছে। আর ওই দালালরা পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারী এবং পুলিশের এসবি সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে থাকে।
সংবাদ সন্মেলনে উপরক্ত রিপোর্টের প্রেক্ষিতে বরিশাল পাসপোর্ট অফিস অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারী ও দালাল চক্রকে শাস্তির আওতায় আনা, সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা, পুলিশের সাথে নিয়োমিত সমন্বয় করাসহ তের দফা সুপারিশ উপস্থাপন করে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)।
বরিশাল নগরীর সদর রোডে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (বিডিএস) মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, সনাক বরিশাল এর সভাপতি অধ্যক্ষ গাজী জাহিদ হোসেন, সদস্য প্রফেসর এম মোয়াজ্জেম হোসেন, মানবেন্দ্র বটব্যাল, প্রফেসর শাহ সাজেদা, নূরজাহান বেগম, সাইফুর রহমান মিরন, শুভঙ্কর চক্রবর্তী ও মো. শাহ্নূর রহমান।