ঝালকাঠি হাসপাতালে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধে দগ্ধ শিশুর রক্তক্ষরণ

ঝালকাঠি প্রতিবেদক॥ ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে দায়িত্বরত নার্স অপর্ণার দায়িত্বে অবহেলায় চিকিৎসা নিতে আসা দগ্ধ শিশুর রক্তক্ষরণ হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে শিশুটির পিতা গোবিন্দ পাল। হাসপাতাল থেকে চিকিৎসার জন্য দেয়া সরকারী দুটি সিরাপের মেয়াদোত্তীর্ণ রয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন গোবিন্দ।  গোবিন্দ জানান, শনিবার (১৮ অক্টোবর) দুপুর ১২ টায় পাতিলে রাখা গরম পানিতে বসে পড়ে কন্যা ঝিলিক পাল (২ বছর ১০ মাস)। হাসপাতাল সংলগ্ন বাসা থেকে সাথে সাথে সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। ওয়ার্ডে দায়িত্বরত অপর্ণা সিরিঞ্জে ইনজেকশন ঢুকিয়ে বেডে রেখে চলে যায়। আধাঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও তিনি না আসায় ডাকতে গেলে অশালীন আচরণ করে এবং ধমক দেয়। পরে এসে হাতে ইনজেকশন পুষ করলে দগ্ধ শিশুর হাত থেকে প্রচন্ড রক্ত ক্ষরণ হয়। কিছুক্ষণ পরে শিফটিং ডিউটিতে আসে নার্স পুতুল রাণী। তিনি সরকারী হাসপাতালের বরাদ্দকৃত ২ টি মেয়াদোত্তীর্ণ সিরাপ (ফ্লুক্সাসিলিন ড্রাই সিরাপ ও এ্যাডভেল) প্রদান করেন। যার মেয়াদ চলতি বছরের জুন মাসেই অতিবাহিত হয়ে গেছে। এবিষয়টি আবাসিক মেডিকেল অফিসার ও সিভিল সার্জনের কাছে জানানো হলেও এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় সদর হাসপাতালে পুতুল রাণীকে খুঁজে পাওয়া না গেলেও দেখা মিলে অপর্ণার সাথে। তিনি এবিষয়ে কথা বলতে নারাজ। নার্স ইনচার্জ জানান, রোগীর চাপ বেশী থাকায় সামাল দিতে অনেক সময় কষ্ট হয়। তারপরেও চেষ্টা করি সেবা দেয়ার। ইনজেকশন পুষের ক্যানেল করতে গিয়ে সামান্য রক্ত বের হয়েছে দেখেই গোবিন্দ উত্তেজিত হয়ে পড়ে। পুতুল যে ওষুধটি দিয়েছে সেটা স্টোর থেকে নামিয়ে দেয়া হয়েছে। তার মেয়াদ খেয়াল না করেই  রোগীকে দেয়া হয়েছে।