ঝালকাঠিতে সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

ঝালকাঠি প্রতিবেদক ॥ ঝালকাঠিতে লবন মিলের মালিকানা নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় ওইদিন বিকেলে শরীফ সল্ট মিলের মালিক পক্ষের সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন রূপালী ভান্ডার মিলের মালিক পক্ষ। বুধবার দুপুরে শহরের থানা রোডস্থ সানাই কমিউনিটি সেন্টারে মেসার্স রূপালী ভান্ডারের এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে মেসার্স রূপালী ভান্ডারের মালিক মোঃ ফজলুল হক হাওলাদার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় তার পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পুত্রবধু সোহেলী লিয়া। এসময় উপস্থিত ছিলেন ফজলুল হক হাওলাদারের কন্যা মুকুল বেগম, আফরোজা আক্তার, জামাতা যুবলীগ নেতা মামুন হোসেন লাভু, ব্যবসায়ীক অংশিদার অলিউর রহমান হিরু।
লিখিত বক্তব্যে সোহেলী লিয়া বলেন, এককালের ঐতিহ্য ঝালকাঠির লবন শিল্প হাতে গোনা কয়েকজন টাউট-বাটপারদের কারণে ধ্বংসের মুখে। তা সত্বেও দীর্ঘদিন ঝুকি নিয়ে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। দীর্ঘ দিন সুনামের সাথে পরিচালিত নুর সল্ট ইন্ডাষ্ট্রিজের মিথ্যা ও অনৈতিক অংশীদার দাবি করে ছালেক শরীফ মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে বিভিন্ন দপ্তরে হয়রাণীমূলক অভিযোগ দিয়ে যাচ্ছে। এ ধরণের এক অভিযোগের প্রেক্ষিতে ১৮ আগস্ট মঙ্গলবার ঝালকাঠি বিসিকের উপ-ব্যবস্থাপকের কার্যালয়ে আলোচনার জন্য চিঠি প্রদান করেন। চিঠির প্রেক্ষিতে ফজলুল হক ও রিয়াজুল ইসলাম সোনা বিসিক কার্যালয়ে উপস্থিত হলে সাবেক অংশীদার ছালেক শরীফ পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তার পুত্র জামাল শরীফ এবং জেলা ছাত্রলীগের নবনির্বাচিত কমিটির সভাপতি শফিক তার ক্যাডারদের নিয়ে বিসিক ভবনের আশপাশে অবস্থান নেয়। বিসিকের উপ-ব্যবস্থাপকের রুমে আলোচনা শুরু হলে অতর্কিতভাবে দু’দফা হামলা চালিয়ে রিয়াজুল ইসলাম সোনা, ম্যানেজার অশোক চক্রবর্তি, ক্যাশিয়ার রনজিৎ সরকারসহ ৭/৮ জন শ্রমিক আহত হয়।
এসময় ছালেক শরীফের শফিক বাহিনী আড়দ্দারপট্টিস্থ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে নগদ ৭ লক্ষ টাকা, ব্যাংকের ৫টি চেক বই, প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র, জমির দলিল, পর্চা, লুট-পাট করে নিয়ে।
এঘটনায় ছালেক শরীফ, তার পুত্র জামাল শরীফ, তাঁদের বাহিনীর বাহাদুর, হেলাল, পলাশ, শফিক, মধু, মনির, উজ্জলসহ অর্ধশতাধিক ক্যাডার এ হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় অংশ নেয় বলে সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়।
পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে ফজলুল হক হাওলাদারকে গুরুতর আহতাবস্থায় বিসিক কার্যালয় থেকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করায়। সে সময়েও হামলাকারীরা তাঁদের দলবল নিয়ে তৃতীয় দফায় হামলা চালিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে মোবাইলটি কেড়ে নিয়ে হাসপাতাল ত্যাগের হুমকি দিয়ে চলে যায়।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সোহেলী লিয়া বলেন, ঝালকাঠি পৌরসভা থেকে বৈধ ট্রেড লাইসেন্সের নামে আইন-কানুন ও নিয়ম-নীতি মেনে সঠিকভাবে অলিউর রহমান হিরু এবং ফজলুল হক হালাদার যৌথ অংশিদার হিসেবে নুর সল্ট ইন্ডাষ্ট্রিজ পরিচালনা করতেন। প্রকৃতপক্ষে ছালেক শরীফ নুর সল্টের কোন অংশিদার নয়।
ক্ষোভ প্রকাশ করে তারা বলেন, আমাদের উপরে হামলা চালিয়ে আহত করা হলো এবং আমাদের লোকদেরকেই গ্রেফতার করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। হামলাকারীরা বহাল তবিয়তেই রয়েছেন। তাঁদেরও আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি জানানো হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে।