জেলা প্রশাসকের কাছে মহিলা পরিষদের স্মারকলিপি

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ পৃথক দাবীতে জেলা প্রশাসক ও সিটি মেয়রের বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে মহিলা পরিষদ বরিশাল জেলা শাখা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসকের কক্ষে জেলা প্রশাসক ড. গাজী মো. সাইফুজ্জামান কাছে চরমোনাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল খায়ের একক ক্ষমতাবলে নারী ইউপি সদস্যদের বাইরে রেখে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার প্রতিবাদে এই স্মারকলিপি দেয় সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।
এসময় নেতৃবৃন্দরা স্মারকলিপিতে উল্লেখ করে বলেন, সদর উপজেলার চরমোনাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল খায়ের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর রেজাউল করীমের ভাই। তিনি পর্দার দোহাই দিয়ে ইউনিয়নের নির্বাচিত নারী জনপ্রতিনিধিদের পরিষদের কার্যক্রম থেকে দূরে সড়িয়ে রেখে নিজের ইচ্ছে মত পরিচালনা করে আসছে। এসময় তারা আরো বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের সভাকালীন সময়ে পুরুষ ইউপি সদস্যদের প্রবেশ করার অনুমতি দিলেও নারী সদস্যদের অন্য রুমে বসিয়ে রেখে নিজের ইচ্ছেমত সভার কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এমনকি কোন গুরুত্বপূর্ন সালিশ বৈঠক চলার সময়ও নারী জনপ্রতিনিধিদের সভাকক্ষে প্রবেশ করতে দেন না চেয়ারম্যান আবুল খায়ের। এবিষয়ে নারী জন প্রতিনিধিগন বিভিন্ন সময়ে চেয়ারম্যানকে অনুরোধ করেও ফল পাননি তারা। যার ফলে পরিষদের নারী জন প্রতিনিধিগন তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হচ্ছেন। তাছাড়া এলাকার জনসাধারনের সেবা দিতেও ব্যর্থ এবং নানা জবাবদিহীতার সম্মুখীন হচ্ছে তারা। এমতাবস্থায় চরমোনাই ইউনিয়ন পরিষদের নারী ইউপি সদস্যদের সভাকক্ষে প্রবেশ সহ ইউনিয়ন পরিষদের সকল কার্যক্রমে অংশগ্রহন করতে পারে এবং তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করতে পারে সেই ব্যবস্থা করার জন্য জোর আহবান জানিয়েছেন মহিলা পরিষদ জেলা শাখার নেতৃবৃন্দরা। অন্যদিকে বরিশালের কর্মজীবি মহিলাদের জন্য হোস্টেল নির্মানের দাবীতে সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামালের বরাবর আরেকটি স্মারকলিপি দেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। এসময় স্মারকলিপিতে তারা উল্লেখ করে বলেন, বরিশাল সিটি কর্পোরশেনের আওতায় অনেক সরকারি, বেসরকারী প্রতিষ্ঠান ও কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠান অবস্থিত। এ সকল প্রতিষ্ঠানের অনেক নারী কর্মকর্তা, কর্মচারী সহ বিভিন্ন পদে কর্মরত আছেন। তবে নিরাপদে বসবাস করার মতো তেমন কোন ব্যবস্থা নেই এই মহানগরীতে। তাদের ভাড়া বাসয় বিভিন্ন সমস্যা মোকাবেলা করে বসবাস করতে হয়। এসময় তারা আরো বলেন, যে সকল কর্মজীবী নারীদের সন্ধ্যার পর অফিস থেকে বাসায় ফিরতে হয় তাদের আরো বেশি ভোগান্তির শিকার হতে হয়। এমতাবস্থায় ২০১৭- ১৮ অর্থবছরে জাতীয় বাজেটে বরিশালে সিটি কর্পোরেশনে কর্মজীবি নারীদের জন্য হোস্টেল নির্মান করার বরাদ্দ রাখা হয় সেজন্য জোড় আহবান জানিয়েছেন তারা। এসময় মহিলা পরিষদ বরিশাল জেলা শাখার সভাপতি রাবেয়া খাতুন, সাধারন সম্পাদক পুষ্প চক্রবর্তী, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রতিমা সরকার, নারী নেত্রী অধ্যাপিকা শাহ সাজেদা, সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রেহানা বেগম সহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।