জেলখাল পরিচ্ছন্নতা অভিযানে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক “জনগনের জেলখাল : আমাদের পরিচ্ছন্নতা অভিযান” এই স্লোগানে আগামী ৩ সেপ্টেম্বর জেলখাল পরিচ্ছন্নতা অভিযান উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা করেছে জেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর দেড়টায় নগরীর জেলা প্রশাসনের সভাকক্ষে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর ও কর্মকর্তাদের সাথে এই প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক ড. গাজী মো. সাইফুজ্জামানের সভাপতিত্বে সভায় জানানো হয়, আগামী ৩রা সেপ্টেম্বর বরিশালের জেল খাল পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার অভিযানে জেলার ৬০ টি এনজিও প্রতিষ্ঠান সহ জেলার সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীবৃন্দ, সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীবৃন্দ, ফেইসবুকের নিবন্ধিত সদস্য ও সকল অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারী সহ সাধারণ জনগন স্বতস্ফুর্ত পরিচ্ছন্নতা কাজে অংশগ্রহণ করবে।

এসময় এই কর্মসূচিতে সিটি কর্পোরেশনের সকল কর্মকর্তা কর্মচারী ও কাউন্সিলরবৃন্দকে অংশগ্রহণ করার আহবান জানানো হয়। এছাড়াও জেল খাল পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানে সকল ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করার জন্য কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষকে আহবান জানানো হয়। সভায় আরও জানানো হয়েছে, জেল খালে স্বচ্ছ পানি সরবরাহ এবং খালের পুরনো যৌবন ফিরিয়ে দিতে ওই দিন সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালিত হবে। জানা গেছে নগরীর নথুল্লাবাদ থেকে কীর্তনখোলা নদী পর্যন্ত জেল খালের দৈর্ঘ্য ৩.২ কিলোমিটার। ইতিমধ্যে প্রতি ১০০ মিটার করে একেকটি ব্লক চিহ্নিত করে ৩০টি খ- চিহ্নিত করে দৃশ্যমান নম্বর প্লেট প্রদান করার কার্যক্রম সমাপ্ত হয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি খন্ডে একেকটি দলকে নিযুক্ত করা হবে। প্রতিটি দলে শতাধিক সচেতন মানুষ অংশগ্রহণ করবেন বলে আশা করা হয়। এদিকে আরও জানা যায়, আটটি দলের একেকটি গুচ্ছে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক পর্যায়ের একেক জন কর্মকর্তা সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকবেন। প্রতিটি দলের পরিস্কার করা ময়লার পরিমাণ বিবেচনায় ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান নির্ধারিত হবে এবং খাল থেকে প্রাপ্ত ময়লা বিসিসি’র আটটি ট্রাকে অপসারণ করে খাল থেকে দূরবর্তী বিসিসি’র ময়লা ফেলার নির্দিষ্ট স্থানে ফেলা হবে। এছাড়াও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম জেলা প্রশাসন পরিচালিত ইধৎরংধষ ভন ঃা ফেসবুক পেজ থেকে সরাসরি প্রচার করা হবে। অন্যদিকে জেল খাল পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে নানা সহায়তা প্রদানের জন্য তিনটি কন্ট্রোলরুম খোলা হবে। কন্ট্রোলরুমগুলোর সর্বদা মনিটরিং এর দায়িত্বে থাকবেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) কাজী হোসনে আরা এবং তার সাথে সহযোগিতা করবেন জেলা প্রশাসনের একজন নির্বাহী হাকিম। সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের সাথে প্রস্তুতি সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবুল কালাম আজাদ, সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী হাকিম ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইমতিয়াজ মাহমুদ জুয়েল, প্রধান প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী হাকিম লুৎফুন্নেছা খানম, সুখময় সরকার, সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র শরীফ তাসলিমা কালাম পলি, কাউন্সিলর মীর জাহিদুল কবির জাহিদ, কহিনুর বেগম, এসএম জাকির হোসেন, মাইনুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান টিপু সহ অন্যান্য কাউন্সিলরবৃন্দ।