জলদস্যুদের হাতে গুলিবিদ্ধকে সাগরে নিক্ষেপ বঙ্গোপসাগরে গণ ডাকাতি ২৫ জেলে অপহৃত, আহত-২৫

ভোলা অফিস ॥ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে জেলে ট্রলারে গণডাকাতি চালিয়েছে জলদস্যুরা। অস্ত্রধারী দস্যুরা পিটিয়ে ও গুলি করে শতাধিক জেলেকে আহত করে। একজনকে গুলিকরে হত্যার পর লাশ সাগরে ভাসিয়ে দিয়েছে। জাল মাছসহ ৫টি ট্রলার ও ২৫ জেলেকে অহরণ করে নিয়ে গেছে। ভোলা ও পটুয়াখালীর দক্ষিণে সাগরের ১৯ বাম নামক স্থানে সোমবার রাতভর লুটতরাজ চলে। গুলিবিদ্ধ ২ জনসহ হামলায় আহত ২১ জেলে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭ টায় চরফ্যাশন শামরাজ ঘাটে ফিরে আসলে এসব তথ্য জানা যায়।
জলদসুদের হামলায় আহত চরফ্যাশন শামরাজের ২১ জেলে টানা ৩০ ঘন্টা ট্রলার চালিয়ে গতকাল সন্ধ্যার পর ঘাটে ফিরে আসে। চরফ্যাশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন হামলায় আহত কাকলি ট্রলারের মাঝি নুর হোসেন জানান, সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় একটি ফিসিং ট্রলারে করে ৩০-৩৫ জনের জলদস্যু বাহিনী তার ট্রলারে হামলা চালায়। হামলাকারীদের হাতে ১২ টি রাইফেল, ২টি শটগান ও দাড়ালো অস্ত্র ছিল। এসব অস্ত্রের মুখে তাদের সবাইকে ট্রলারের কোল্ড স্টোরেজের মধ্যে জিম্মি করে রাখে। এরপর দস্যুরা ওই এলাকায় অবস্থান করা ৩৫টি জেলে ট্রলারকে একত্রিত করে। ৪০/৫০ রাউন্ড গুলি ছুড়ে জেলেদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে দেয় এবং চট্টগ্রামের এক জেলেকে ট্রলারের ওপর গুলি করে হত্যার পর লাশ সাগরে ভাসিয়ে দেয়। জিম্মি জেলেরা প্রাণভিক্ষা চাইলে সব ট্রলারের মাছ ৬টি ট্রলারে (দস্যুদের ১টা সহ) তুলে ২৫ জেলেসহ পূর্বদিকে চলে যায়। অপহৃত জেলেরা নোয়াখালীর হাতিয়া ও কক্সবাজার এলাকার। তবে তাদের নাম জানাতে পারেন নি নুর হোসেন। জলদস্যুদের কবল থেকে মুক্তি পেয়ে ৩০ ঘন্টা ট্রলার চালিয়ে গতকাল সন্ধ্যার পর আহত জেলেরা শামরাজ ঘাটে ফিরে আসে।
ফিরে আসা জেলেদের তথ্যে আরো জানা যায়, জলদস্যুদের হাতে অনেক অস্ত্র থাকায় কেউ বিরোধীতা করার সাহস পায় নি। আহত অবস্থায় চরফ্যাশনের শামরাজ ঘাটে ফিরে আসা জেলেরা হচ্ছেন, হামিম ট্রলারের মাঝি আবদুল কাদের মাঝি ও মোঃ রিয়াজ গুলিবিদ্ধ হন। পিটিয়ে আহত করা হয়েছে ওই ট্রলারের আলাউদ্দিন, সিরাজ, খোকন, জাহেদ, জাবেদ ও জামালকে। একইভাবে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে কাকলি ট্রলারের মাঝি নুর হোসেন, সেলিম, ইয়াছিন, তোফায়েল, আঃ কালাম, বেল্লাল এবং মা- আমেনা ট্রলারের মোঃ আলী মাঝি, কালাম, শাহিন, মোতালেব, মান্নান ও কাদেরকে। গুলিবিদ্ধ ও আহতদের চিকিৎসার জন্য চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হয়েছে। এছাড়া হামলায় আহত ৮ মাঝি মাল্লাসহ চরফ্যাশন ঢালচরের জলিল মাঝির চাঁদনী নামের আরো একটি ট্রলার পটুয়াখালীর মহিপুর ঘাটে পৌঁছেছে বলেও জানা গেছে। মনপুরার কালকিনি ঘাটের আরো ২টি ট্রলার হামলার শিকার হয়েছে বলে ঘাটসূত্রে জানা গেলেও তাৎক্ষণিক নাম ঠিকানা পাওয়া যায় নি।
চরফ্যাশন থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল বাসার জানান, জলদস্যুদের হামলায় ২ জন গুলিবিদ্ধসহ কয়েকজন আহত হওয়ার খবর পেয়ে পুলিশ ঘাটে গেছে। ঘটনাটি চরফ্যাশন থেকে অনেক দূরে সাগরে হয়েছে।