ছাত্রদলের কলেজ কমিটিতে পদ পেতে কৌশলে ব্যস্ত সুবিধাবাদীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ছাত্রদলের কলেজ শাখা কমিটি পুনঃগঠনের খবরে সুবিধাবাদীরা কুট কৌশলে পদ পেতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সরকার বিরোধী আন্দোলনে অংশ নিয়ে কারান্তরীন থাকাসহ মামলার আসামী হয়ে পালিয়ে থাকা তৃনমূলের নেতা কর্মীরা এমন অভিযোগ করেছে। তাদের অভিযোগ যারা ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের লেজুরবৃত্তি করে নিজেদের রক্ষা করে, তারা কলেজ শাখা কমিটির পদ পেতে কুট কৌশল করে আলোচনায় উঠে এসেছে।
অভিযোগকারীরা জানায়, নগরীর প্রতিটি কলেজ শাখা কমিটি এক যুগ পূর্বে হয়েছে। ওই সকল কমিটির নেতারা সরকার বিরোধী আন্দোলনে কোন ভূমিকায় ছিল না। ক্ষমতাবলে ফায়দা লুটে এসব নেতারা সিংগভাগ নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছিল। এমনকি এসব কর্মীরা দীর্ঘদিন কারান্তরীন ছিল। আত্মগোপনে থেকেও দলীয় কর্মসূচী পালনের খবরে এসে অংশ নিয়েছে।
মূল দলের সাথে ছাত্র দলের কলেজ ওয়ার্ড শাখার পুনঃগঠনের প্রক্রিয়া শুরুর পর এসব ত্যাগীরা আশ্বান্বিত হয়ে উঠেছে। গ্রেপ্তার আতংক নিয়েও আত্মগোপন থেকে বেরিয়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে তারা।
তারা জানায়, বিএম কলেজ শাখা কমিটিতে ত্যাগী নেতাদের সাথে কিছু বিতর্কিতদের নাম উঠেছ এসেছে। নানা কুট-কৌশলে ছাত্রলীগ নেতাদের ¯েœহধন্য হিসেবে পরিচিত মিলন সাহা কানু ও রুবেলসহ কয়েকজন পদবি বাগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে।
প্রকৃত ত্যাগী হিসেবে মোঃ হুমায়ন কবির, সোহেল রাঢ়ি, তারিকুল ইসলাম তারেক, নাইমুল হাসান সোহেল, রায়হান, শাহজাদা মোল্লাদের সমন্বয়ে কমিটি দেয়ার দাবি উঠেছে।
একইভাবে সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ শাখা ছাত্রদলে পদের দাবীদার হিসেবে মুশফিকুর রহমান অভি, মাসুদ হাসান সজিব ও সোহেল রানার নাম উঠে এসেছে। ৩ মামলার এজাহার নামি আসামী ও সাড়ে ৫ মাস জেলের ঘানি টানা সুজন হাওলাদার বাবু ও মেহেদী হাসান মিরাজের সমন্বয়ে পলিটেকনিক কলেজ শাখার কমিটি হলে ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছে তৃনমূল নেতারা।
মহানগর ছাত্রদলের আহবায়ক খন্দকার আবুল হাসান লিমন পরিবর্তনকে জানান, জ্যেষ্ঠ নেতাদের সাথে ছাত্রদলের কলেজ কমিটি গঠন বিষয়ক চূড়ান্ত আলোচনা হয়েছে। দ্রুত কলেজ, ওয়ার্ড ও মহানগরের সকল ইউনিটের কমিটিই গঠন করা হবে।
মহানগর বিএনপির সভাপতি এ্যাডঃ মজিবর রহমান সারোয়ার পরিবর্তনকে জানিয়েছেন, কলেজ শাখা কমিটিগুলো অনেক আগেই দেয়া উচিৎ ছিল। বিভিন্ন জটিলতায় তা সম্ভব হচ্ছিল না। তবে চূড়ান্ত প্রক্রিয়া শুরু করেছেন এবার। মহানগর ছাত্রদল নেতাদের ইতিমধ্যেই সবদিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, অতি শিঘ্রই ত্যাগী ও প্রকৃত ছাত্র হিসেবে এখনও টিকে থাকা ছাত্রদল নেতাদের সমন্বয়ে গঠন করা হবে কলেজ শাখা ছাত্রদলের কমিটি। সেখানে দুধের মাছি ও চাটুকারদের স্থান হবে না বলেন তিনি। কারণ কারা প্রকৃত ত্যাগী তা দল ভাল করে জানে।