চরমোনাই ট্রলারঘাটের ইজারা বাতিলের দাবীতে ফুসে উঠেছে ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ নগরীর চরমোনাই ট্রলারঘাটের ইজারা বাতিলের দাবীতে ফুঁসে উঠেছে বৃহত্তর হাটখোলা ব্যবসায়ী মহল। দীর্ঘ প্রায় ২৫ বছর ধরে ঐ ঘাটে ইজারা মুক্ত থাকার পরে হঠাত করে গত সোমবার থেকে স্থানীয় শ্রমিক নেতাদের ইজারা আদায়ের ঘটনায় ঐ এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। স্থানীয় শ্রমিক নেতাদের ক্ষমতার দাপটে ব্যবসায়ীরা প্রকাশ্যে তেমন কিছু না বললেও খুব  শীঘ্রই তারা ঘাটের ইজারা বাতিলের জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন করবেন বলে জানান। ট্রলার ব্যবসায়ী মোঃ মিরাজ মুন্সি জানান, হঠাৎ করে ইজারা প্রথা চালু হওয়ায় ঘাট ব্যবহারকারীদের মাঝে ক্ষোভ দেখা গেছে। ঠিকাদার ব্যবসায়ী নারায়ন চন্দ্র দে নারু জানান, ইজারা বাতিলের দাবীতে ব্যবসায়ী মহল শীঘ্রই বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান, বিসিসি মেয়র, জেলা প্রশাসক ও বন্দর কর্মকর্তার কাছে আবেদন জানাবেন। এদিকে বিআইডব্লিউটি’র বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে বছরে ৪লাখ টাকা হারে ঐ ঘাটের ইজারার জন্য বরিশাল আ’লীগের প্রথম সারির চার নেতা চারটি গ্রুপকে ইজারা প্রদানের জন্য বিআইডব্লিউটি’র উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সুপারিশ করেছেন। তবে এর মধ্যে থেকে বর্তমান সদর আসনের সাংসদ জেবুন্নেছা আফরোজের জোর সুপারিশেই মোঃ জসিম বিশ্বাস’র গ্রুপ ঘাটের ইজারার দায়িত্ব নেয়। এ নিয়ে তখন আওয়ামীলীগের ২/৩টি গ্রুপের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। অন্যদিকে হাটখোলা বাজাররোড ফরিয়াপট্টি ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে বিসিসি মেয়র আহসান হাবিব কামালের কাছে বিষয়টি জানানো হয়েছে। মেয়র ঐ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশের পাশাপাশি আশ্বস্ত করে বলেছেন বিসিসির অধীন ঐ ঘাটের ইজারা বাতিলের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। হাটখোলা বাজার রোড ফরিয়াপট্টি ব্যবসায়ী সমিতির শম্ভুনাথ সাহা ইজারার বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বৃহত্তর হাটখোলা এলাকার ব্যবসায়ীদের স্বার্থ বিরোধী ঐ ইজারা প্রথা যে কোন মূল্যে বাতিল করতে আমরা ঐক্যবদ্ধ। এলাকার সাবেক কাউন্সিলর শেখ আবদুস সোবাহান জানান, সাবেক মেয়র মরহুম আলহাজ্ব এ্যাডঃ শওকত হোসেন হিরন তার মেয়াদ কালীন সময়ে হাটখোলার এক জনসভায় ঘোষনা করেছিলেন ব্যবসায়িদের স্বার্থে চরমোনাই ট্রলারঘাট ইজারা মুক্ত থাকবে। আবদুস সোবহানের প্রশ্ন ব্যবসায়ীদের স্বার্থ উপেক্ষা করে কার স্বার্থে হঠাৎ করে এই ইজারা চালু হলো? এসব বিষয়ে বরিশাল নৌ-বন্দর কর্মকর্তা মোঃ শহীদ উল্যাহ বলেন, যতদূর জানা গেছে ইজারাদার মোঃ জসিম বিশ্বাস বরিশাল সদর আসনের এমপি জেবুন্নেছা আফরোজের সুপারিশে ক্রমে বিআইডব্লিউটি’র প্রধান কার্যালয় থেকে ইজারার অনুমোদন লাভ করে। চরমোনাই ট্রলার ঘাট বিসিসির অধীন কিন্তু ইজারার অনুমতি প্রদান করে বিআইডব্লিউটিএ এটা সঠিক করেছে? এর উত্তরে তিনি জানান, দেশের সকল নদ-নদী, খাল-বিল এসব কিছুই বিআইডব্লিউটিএ’র অধিন। সে অনুযায়ী চরামানাই ট্রলার ঘাটটি ও তেমনি বিআইডব্লিউটিএ দেখভাল করছে।