চরমোনাই’র ফাল্গুনের মাহফিলের উদ্বোধনী বয়ানে পীরসন্ত্রাস, নির্যাতন, জুলুম ও অত্যাচারের প্রতিবাদ হিসেবে ইউপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ইউপি নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রতীক হাতপাখায় ভোট চেয়েছেন চরমোনাই পীর সৈয়দ মো. রেজাউল করিম। গতকাল বুধবার চরমোনাই’র ফাল্গুনের ৩ দিন ব্যাপী বাৎসরিক মাহফিলের উদ্বোধনী বয়ানে ওই আহবান করেন তিনি।
ক্ষমতাসীন আ’লীগ ও বিএনপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, তারা জনগনের কাঙ্খিত উন্নয়ন বা কল্যাণ বয়ে আনতে পারেনি। দু’দলই তাদের নিজেদের ভাগ্যের উন্নয়নের পাশাপাশি কল্যাণ করেছে। প্রকৃত পক্ষে জনগনের কল্যাণ এনে দিতে পারে ইসলামি শাসন ব্যবস্থা।
যোহরবাদ উদ্বোধনী বয়ানে ইউপি নির্বাচনে অংশ নেয়ার কারণ সম্পর্কে তিনি আরো বলেন, আমরা আ’লীগ সরকারের সন্ত্রাস, নির্যাতন, জুলুম ও অত্যাচারের প্রতিবাদ হিসেবেই প্রতিটি নির্বাচনের মতো এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি।
আল্লাহ ও তার রাসুলের সন্তষ্টি অর্জন করাই মানব জীবনের একমাত্র লক্ষ্য, জীবনের প্রতিটি স্তরে ইসলামী আদর্শ বাস্তবায়ন করলেই এ লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব। তাই এই মাহফিলে আল্লাহ ও তার রাসুলের সন্তুষ্টি অর্জনে করনীয় ও বর্জনীয় বিষয়বলী শিক্ষা দেয়া হয়।
পীর সাহেব তার বয়ানে বলেন, মাহফিল ময়দানে দুনিয়া লাভের কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে কেউ এসে থাকলে তাদের নিয়ত পরিবর্তন করে একমাত্র আল্লাহকে রাজি খুশি করার জন্য এ ময়দানে বসতে হবে। কারণ নিয়তের ওপর সকল কাজ নির্ভরশীল। তাই নিয়তকে আগে পরিশুদ্ধ করতে হবে।
তিনি আরো বলেন, দুনিয়া ক্ষণস্থায়ী, এই দুনিয়াতে বেশী দিন থাকা যাবেনা। একদিন সবাইকে এই নশ্বর পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে। তাই সময় থাকতে পরকালের স্থায়ী জিন্দেগীর জন্য তৈরী হতে হবে। একদিন আমার দাদা জীবিত ছিল সে চলে গেছে, আবার বাবা ছিল সেও কিন্তু থাকতে পারে নাই। আজ আমি আছি একদিন আমিও থাকবোনা। সময় থাকতে পরকালের জন্য সবাইকে তৈরী হওয়া লাগবে।
মাহফিলে আরও বয়ান করবেন, দারুল উলুম দেওবন্দ ভারতের নায়েবে মুহতামিম মাওলানা আবদুল খালেক সাম্ভলী, দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রসার সাবেক শিক্ষা সচিব মাওলানা মুজিবুল্লাহ, নায়েবে আমীরুল মুজাহিদীন আলহাজ্ব মুফতি সৈয়দ মোঃ ফয়জুল করীম, মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, আলহাজ্ব মুফতি সৈয়দ এসহাক মোঃ আবুল খায়ের, মরহুম পীর সাহেবের খলিফা মাওলানা আবদুর রশিদ (পীর সাহেব বরগুনা), আল্লামা নুরুল হুদা ফয়েজী (পীর সাহেব কারীমপুর) ও অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ (পীর সাহেব খুলনা) সহ দেশ-বিদেশের আড়াইশ বিখ্যাত আলেমগন।
বৃষ্টির কারণে মাঠ কর্দমাক্ত হয়ে পড়েছে। এতে মুসুল্লীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। অনেক মুসুল্লী মাহফিল শেষ না করে গন্তব্যে ফিরে গেছেন।
কীর্তনখোলা নদীর তীরবর্তি চরমোনাই বার্ষিক ফাল্গুনের মাহফিল মাদরাসার ৪ টি মাঠসহ আশেপাশের ময়দানে মুসুল্লীরা এসে ভীড় করেছেন। মাহফিলের পরিচালনা কমিটির প্রধান ও আলীয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোছাদ্দেক বিল¬াহ মাদানী জানান, মাহফিলে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বিশ হাজার মাইক, চল্লিশ হাজার বৈদুত্যিক বাতি লাগানো হয়েছে। বিদ্যুৎ ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখতে জেনারেটর রয়েছে। এছাড়াও নিজস্ব গভীর নলকূপের মাধ্যমে উত্তেলিত বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহের জন্য ব্যবস্থা ও মুসুল্লীদের ওজু গোসল এবং টয়লেটের ব্যবস্থা রয়েছে। মাহফিলের শৃংখলা ও নিরাপত্তা রক্ষায় রয়েছে সেচ্ছা সেবক বাহিনী, মাদরাসার ছাত্র, র‌্যাব-পুলিশ-গোয়েন্দা সংস্থার কর্মীরা। যদি মুসুল্লী¬দের মধ্যে যদি কেউ অসুস্থ হয়ে পড়েন, তাদের চিকিৎসার জন্য “আল-কারীম জেনারেল হাসপাতাল” রয়েছে।