চরকাউয়া খেয়াঘাটে জমি দখল নিয়ে এবার ক্ষমতাসীন দুই গ্রুপ মুখোমুখি

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ নগরীর চরকাউয়া খেয়াঘাট বাজারে বিআইডব্লিউটিএ’র জমিতে স্টল নির্মাণ নিয়ে শুরু হয়েছে স্থানীয় দখলদারদের মধ্যে চুল ছেঁড়াছিড়ি। গতকাল রোববার সকালের এই ঘটনায় স্থানীয় এক দখলদার ভেঙে দিয়েছে অপর দখলদারের তৈরি স্টলের কাঠামো। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে হয় উচ্চ বাকবিতন্ডা। এ সকল অভিযোগের সাথে স্থানীয়রা আরও জানায়, এই দখলের চেষ্টায় যে কোন সময় বড় ধরনের সংঘর্ষ ঘটে যেতে পারে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, চরকাউয়া এলাকার মজনু, ১০নং ওয়ার্ডের কালাম শরীফ, চেরাগ আলী সরদার আজু সহ বেশ কিছু এলাকার চিহ্নিত দখলদার নিজেদের আ’লীগ নেতা পরিচয় দিয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র অনুমোদন আছে জানিয়ে সরকারি জমিতে স্টল নির্মানের চেষ্টা চালায়। তৈরি করে স্টলের কাঠের কাঠামো। কিন্তু এই খবরে আ’লীগের নাম ভাঙিয়ে চলা অপর পক্ষ তাদের বাঁধা দেয়। এরা হলেন আবুল তালুকদার, আমবাগান এলাকার কবির ও মাসুম। তবে কোন সৎ উদ্যেশ্য নিয়ে বাধা দেয় নি। তারা দাবী করে যদি ঐ স্থানে স্টল তৈরি করা হয় তবে সেই স্টলের ভাগ তাদেরকেও দিতে হবে বলে। তারা বলে স্টল  দেও অথবা মোটা অংকের টাকা দাও। এই দাবী মেনে না নেয়ায় দুই পক্ষের মধ্যে শুরু হয় বাক বিতন্ডা। এক পর্যায় মাসুম গ্রুপ স্টল তৈরির কাঠের কাঠামো ছিনিয়ে নিয়ে চেইন তালা মেরে দেয়। এ সময় পুরো এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। পরবর্তীতের বিষয়টি তারা নিজেরাই মিমাংসা করবে বলে চলে যায়। অপরদিকে ঘটনার কিছুক্ষণ এর মধ্যেই একজন সাংবাদিক পৌছান ঘটনাস্থলে। তবে তিনি সেখানে সংবাদ সংগ্রহের কাজে যাননি। সেখানে পৌছে তিনি বলেন, তারও নাকি বিআইডব্লিউটিএ’র পক্ষ থেকে ২টি স্টল বরাদ্দ রয়েছে। যদি কেউ ঐ স্থানে স্টল তোলে তবে তাকেও স্টল দিতে হয়। আর যদি সে না পায় তাহলে কেউ পাবেনা বলে জানায় সে। অন্যদিকে সকালে উভয়পক্ষ চলে গেলেও সন্ধ্যা নামার সাথে সাথেই তারা আবারও আসে। গতকাল রাত পর্যন্ত অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে অবস্থানে থেকে উভয়ই স্টল নির্মান করেছে বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। সন্ধ্যায় স্টল নির্মান কালে অস্ত্র হাতে পাহারা দেয় চরকাউয়া দিনারপুল এলাকার ছিচকে বখাটে হাসান ওরফে থাই হাসান। সে নিজেকে মাসুম গ্রুপের সদস্য বলে দাবী করে এবং বলে অন্যরা স্টল পেলে আমরাও পাবো। থাই হাসানের বিষয়ে এলাকাবাসী জানায়, হাসান মূলত কোন গ্রুপের না। সে টাকার বিনিময়ে এ সকল কাজ করে। এলাকায় ছিনতাই, ইভটিজিং ও বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদেরদ মাদকদ্রব্য আনা নেয়াই তার কাজ। এই ঘটনায় শেষ পর্যন্ত খেয়াঘাট এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।