ঘুষ নিতে গিয়ে দুদকের হাতে আটক সেটেলমেন্ট কার্যালয়ের পেশকার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ সেবা গ্রহীতার কাছ থেকে ঘুষ গ্রহন করতে গিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন’র (দুদক) পাতা ফাঁদে ফেঁসে গেছে বরিশাল সহকারী সেটেলমেন্ট কার্যালয়ের এক পেশকার (কম্পোজিটর)। সেবা দেয়ার জন্য ১০ হাজার টাকা ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে তাকে আটক করেছে দুদক। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে দুদক’র সাত সদস্য’র একটি দলের অভিযানে আটক হওয়া পেশকারকে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আটক পেশকার আবু বক্কর সিদ্দিকী (৪৬) মাদারীপুর জেলার শিবচর থানাধীন পূর্ব সন্ন্যাসীর চর এলাকার মৃত আব্দুল কাদের মাষ্টারের ছেলে। এই ঘটনায় দুদক’র বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক মো. আল আমীন বাদী হয়ে দুর্নীতি দমন আইনে একটি মামলা করেছেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতয়ালী মডেল থানার দায়িত্বে থাকা মহানগর পুলিশের সিনিয়র সহকারী কমিশনার মো. ফরহাদ সরদার। মামলার বরাত দিয়ে তিনি জানান, বাকেরগঞ্জ উপজেলার বাকরকাঠি এলাকার মো. আব্দুল মান্নান খান বরিশাল নগরীর রূপাতলী মৌজার পৌনে ৮ শতাংশ জমির নামপত্তনের জন্য ৩১ ধারায় শুনানি করান। শুনানির রায়ের কপি পেতে পেশকার আবু বক্কর সিদ্দিকীর কাছে যান। এসময় তিনি এক লাখ টাকা ঘুষ দাবী করে। তবে শেষ পর্যন্ত ১০ হাজার টাকায় তা পাইয়ে দেয়ার বিষয়ে রফাদফা হয়।
এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৩ ডিসেম্বর সেবা গ্রহিতা আব্দুল মান্নান খান এ সংক্রান্ত বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ঘুষ সহ হাতেনাতে ধরিয়ে দেয়ার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশন বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক মো. মো. আবু সাঈদ’র তত্ত্বাবধায়নে উপ-পরিচালক মো. মতিউর রহমানকে প্রধান করে সাত সদস্য বিশিষ্ট একটি ফাঁদ দল তৈরী করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় সহকারী সেটেলমেন্ট কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করে ওই টিম। এসময় সেখান থেকে পেশকার আবু বক্কর সিদ্দিকীকে ঘুষের টাকা সহ হাতেনাতে আটক করে। পরে তার কাছ থেকে এক হাজার টাকার ১০টি নোট উদ্ধার করা হয়।