ঘুষের ৫০ লাখ টাকা ফেরত দিলেন ডিসি নর্থ জিল্লুর রহমান

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বরিশাল মেট্রো পলিটন পুলিশ সদস্যদের পদন্নতি’র জন্য ঘুষ তহবিল থেকে ৫০ লাখ টাকা ফেরত দিয়েছেন সাময়িক বরখাস্ত হওয়া উপ-পুলিশ কমিশনার (নর্থ) জিল্লুর রহমান। গত বুধবার তিনি বিএমপি কার্যালয়ে কমিশণা’র নিকট টাকা ঘুষ তহবিলের টাকা জমা দেন বলে নিশ্চিত করেছেন কমিশনার শৈবাল কান্তি চৌধুরী।
তবে বুধবার একই দিন উপ-পুলিশ কমিশনার জিল্লুর রহমানকে ঘুষের জন্য তহবিল গঠন করার অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তাকে সিলেট রেঞ্জ ডিআইজির কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।
পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহ-পরিদর্শক (এমঅ্যান্ডপিআর) মো. নজরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পদোন্নতির জন্য ঘুষের টাকা সংগ্রহে বরিশাল মহানগর পুলিশের নিম্ন পদের পুলিশ সদস্যদেরকে প্রলুব্ধ করেছেন- এমন অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা তথ্য পেয়েছে সদর দপ্তর। ডিসিপ্লিন অ্যান্ড প্রফেশনাল স্ট্যান্ডার্ড শাখা ওই বিষয়টিতে অনুসন্ধানে নামে। সাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে জিল্লুর রহমানকে সাময়িক ভাবে বরখাস্তের সুপারিশ করেন আইজিপি। পরবর্তীতে তাকে সাময়িক বরখাস্তের পাশাপাশি ঘুষের টাকা ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার বিএমপি’র বহিস্কৃত উপ-পুলিশ কমিশনার জিল্লুর রহমানক ৫০ লক্ষ টাকা ফেরত দেন।
উল্লখ্য, বিএমপি সূত্রে জানা গেছে, বিএমপি’র সৃষ্ট প্রায় ৮০০ পদে পদোন্নতি দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে পদোন্নাতি প্রত্যাশী পুলিশের প্রতি সদস্যের কাছ থেকে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকা করে সংগ্রহ করা হয়। ইতিমধ্যে ৭৭ লাখ টাকার তহবিল গঠন করেন তারা। যার মধ্যে বিএমপির এএসআই আনিসুজ্জামান, নায়েক কবীর হোসেন ও চালক বাবলু মজুমদারের যৌথ হিসাব নম্বরে ১৭ লাখ টাকা পাওয়া যায়।