খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে আবারও হামলা

বিডিনিউজ ॥ আগের দুই দিনের মতো রাজধানীতে আবার আক্রান্ত হয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গাড়িবহর। বুধবার বিকালে চলন্ত অবস্থায় বাংলা মোটরে হামলার পর ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি নিয়েই নয়া পল্টনে গিয়ে দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান নিয়েছেন খালেদা জিয়া। ভোটের প্রচারে আর না বেরিয়ে দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের নয়া পল্টনের কার্যালয়ে ডেকে পাঠান তিনি। পরে সংবাদ সম্মেলন করে প্রতিক্রিয়া জানান তার উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন। হামলায় খালেদার গাড়ির কাচ ভেঙেছে, ভাংচুর হয়েছে বহরে থাকা তার ব্যক্তিগত নিরাপত্তা বাহিনী সিএসএফের গাড়িও। হামলাকারীরা বেধড়ক পিটিয়েছে সিএসএফ সদস্যসহ কয়েকজনকে। সিটি নির্বাচনের প্রচারের জন্য অন্য দিনের মতোই বিকালে গুলশানের বাসা থেকে গাড়িবহর নিয়ে বের হন বিএনপি চেয়ারপারসন। বাংলা মোটর এলাকায় একদল যুবক লাঠিসোঁটা ও হকি স্টিক নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। নিজের নিশান গাড়িটিতে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান। খালেদা গাড়ির যে পাশে বসেছিলেন, সে পাশে পেছনের কাচটি ভাঙা হয়েছে। গাড়ির বাম্পারও ভেঙে পড়েছে হামলায়। বিকাল সোয়া ৫টার পর সেখানে ট্রাফিক সিগন্যালে থেমে ছিল খালেদার গাড়িবহর। সিগন্যাল উঠলে গাড়ি রওনা হওয়ার সময় কনকর্ড টাওয়ারের সামনে ৩০/৪০ যুবক ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান দিয়ে গাড়ির দিকে ধেয়ে আসে। হামলাকারীদের দেখে নিরাপত্তা রক্ষীরা খালেদার গাড়ি ঘিরে ফেলে। এর মধ্যেই লাঠি ও হকি স্টিক দিয়ে বিভিন্ন গাড়িতে সমানে আঘাত চলে। সিএসএফের চারটি গাড়ির সঙ্গে বেসরকারি দুটি টেলিভিশনের গাড়িও ভাংচুর হয়। হামলার মধ্যেই গাড়িগুলো গতি বাড়িয়ে শেরাটন হোটেলে দিকে চলে যায়। তবে একটি গাড়ির চালক আব্দুল মান্নান এবং সিএসএফ সদস্য অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট সামিউল ইসলামকে সড়কে ফেলে পেটায় হামলাকারীরা। দুজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় হাসপাতালে পাঠানো হয়। গাড়িবহরের সঙ্গে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক পুলিশ মহাপরিদর্শক আবদুল কাইয়ুমসহ কয়েকজনও আহত হন। হামলার পর রূপসী বাংলা মোড় হয়ে গাড়িবহর নিয়ে নয়া পল্টনের দিকে যান খালেদা। দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কিছুক্ষণ থেমে পল্টন থানার মোড় ঘুরে এসে কার্যালয়ে ঢুকে পড়েন তিনি। এসময় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হওয়া কয়েকশ’ নেতা-কর্মী ‘খালেদা জিয়ার উপর হামলা কেন-শেখ হাসিনা জবাব চাই’, ‘খালেদা জিয়া এগিয়ে চল, আমরা আছি তোমার সাথে’ স্লোগান দিচ্ছিল। কার্যালয়ের দোতলায় নিজের চেম্বারে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে কার্যালয়ের ভেতরে। সোমবার কারওয়ান বাজারে ব্যাপক হামলার পর ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি নিয়েই সিটি নির্বাচনের প্রচারে মঙ্গলবার বেরিয়েছিলেন খালেদা। সেদিনও ফকিরাপুলে তার গাড়িবহর হামলার মুখে পড়ে। তার আগে রোববার রাজধানীর উত্তরায় বাধার সম্মুখীন হয়েছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন। সরকারবিরোধী আন্দোলন শিথিল করে সিটি নির্বাচনে আসার পর শনিবার খেকে ঢাকায় বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চেয়ে প্রচার চালাচ্ছেন খালেদা। কারওয়ান বাজারে গাড়িবহরে হামলা তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বলে খালেদা জিয়া দাবি করেছেন। অন্যদিকে একে ‘নাটক’ বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই হামলা নিয়ে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ পাল্টাপাল্টি মামলা করেছে।