ক্রেতাদের চাহিদা “ভিন্নধর্মী” পাঞ্জাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ ঈদে পুরুষের কেনা কাটার একটি অপরিহার্য পাঞ্জাবি। নতুন পাঞ্জাবি ছাড়া ঈদের নামাজ সেতো প্রায় অসম্ভব। তাই পছন্দসই পাঞ্জাবিটি কিনতে সব বয়সিদের ভিড় বাড়ছে নগরীর পাঞ্জাবির বিপনিগুলোতে। জীবনযাত্রার মান উন্নত হয়েছে নগরবাসীর, তাই এখন ক্রেতারা অনেক রুচিসম্মত বলে বিক্রেতারা জানিয়েছে ফ্যাশনেবল পাঞ্জবির ব্যাপক চাহিদার কথা। বিশেষ করে তরুন ক্রেতারা এখন পাঞ্জাবির বিষয়ে অনেক চাহিদা রাখে। তাদের পছন্দ সাধারন ও জাক জমকপূর্ন দুই ধরনের পাঞ্জাবিই। কাপড় কিনে নিজের পছন্দসই পাঞ্জাবিও তৈরি করাচ্ছেন অনেকেই। এবারের ঈদে পাঞ্জাবির বাজার ঘুরে দেখা গেছে, নগরের ছোট বড় সব পাঞ্জাবির দোকানেই যাচ্ছে তরুনরা। যাদের অনেকেই কিনতে গেলেও বেশিরভাগ যাচ্ছে পছন্দ করে রেখে আসার জন্য। এবারের ঈদ বাজারে শর্ট ও লং এবং রেগুলার তিন ধরনের পাঞ্জাবিরই চাহিদা রয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী কালেকশনও আছে নগরীর বিভিন্ন ব্রান্ডের পাঞ্জাবির দোকানগুলোতে। এছাড়াও নগরের বড় বড় বিপণীগুলোতে পাওয়া যাচ্ছে আড়ং এর মত ব্রান্ডের পাঞ্জাবি। শিশু, কিশোর, তরুন, যুবক, মধ্যবয়সি, বৃদ্ধ সব ক্রেতারাই খুজে নিচ্ছেন তাদের পছন্দসই পাঞ্জাবিগুলো। ব্রান্ডের পাঞ্জাবি গুলো উচ্চ মূল্যের হলেও মোটামুটি সাশ্রয়ী মূল্যে মিলছে সাধারণ গুলো। তবে অনেক ক্রেতারাই এতো কিছুর মধ্যে পাচ্ছে না তাদের পছন্দেরটি। তাই তদের মন্তব্য করতে শোনা গেছে রাজধানির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হওয়ার। অন্যদিকে পুরুষের পোষাক পাঞ্জাবি হলেও বিপণীগুলোতে সমান ভীড় তরুনীদের। ভাই, বন্ধু, পিতা অথবা প্রিয়জনের জন্য ঈদ এর উপহার হিসেবে পছন্দ করে পাঞ্জাবি কেনার জন্য তারা যাচ্ছে বিপণীতে। নগরীর বিভিন্ন পাঞ্জাবির দোকানে বিক্রেতাদের সাথে আলাপকালে তারা জানান, এবার রেগুলার ফিট, স্লিম ফিটের পাঞ্জাবিই বেশি চলছে। কটন, সিল্ক, এন্ডি, জাকার্ড কটন, জয়সিল্ক, সিল্কি কটনসহ বিভিন্ন কাপড় ব্যবহার করে তৈরি হচ্ছে নানান ফ্যাশনের পাঞ্জাবি। দাম দেড় থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। বেশিরভাগে কালেকশনই তরুনদের জন্য তবে বয়স্কদের জন্য রয়েছে গাম্ভির্যপূর্ন ডিজাইন। ক্রেতার পরিমাণ ঈদের শেষ মূহেুর্তে বাড়বে। বর্তমানে যারা আসছেন তারা বেশির ভাগই চাচ্ছেন সাধারণ ডিজাইনের মধ্যে ভাল মানের কাপড়ের তৈরি পাঞ্জাবি।