কোতয়ালী থানার পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে মারধর ॥ ৫ হিজড়া আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশের এক এসআই’র বাসায় গিয়ে দাবিকৃত ২ হাজার টাকা চাঁদা না দেয়ায় ওই পুলিশ সদস্যের স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগে ৫ হিজড়াকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর রূপাতলী এলাকা থেকে তাদের আটকের পর চাঁদাদাবীর অভিযোগে কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।

এ ঘটনার পর বরিশালের অন্যান্য হিজড়ারা কোতয়ালী থানা ঘেরাও করলে তাদের ছেড়ে দেয়ার আশ্বাসে শান্ত হয় তারা। আটককৃত হিজড়ারা হলো লতা, শাহানাজ, নীলা, হীরা ও সুমী।

থানা সূত্র জানায়, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নগরীর রূপাতলী এলাকায় কোতয়ালী মডেল থানার এসআই মহিউদ্দিনের বাসায় যায় ওই ৫ হিজড়া। এ সময় তার নবজাতক শিশুকে নিয়ে খেলা শুরু করেই এসআই মহিউদ্দিনের স্ত্রীর কাছে ২ হাজার টাকা দাবি করে হিজড়াদের ওই দলটি। মহিউদ্দিনের স্ত্রী ২ হাজার টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে হিজড়ারা তাকে (মহিউদ্দিনের স্ত্রী) গালাগাল এবং মারধর করে।

হট্টগোলের শব্দ শুনে প্রতিবেশী মো. কবির এসআই মহিউদ্দিনের বাসায় গিয়ে হিজড়াদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করলে তাকেও মারধর করে তারা। এতে কবির আহত হয়। পরে থানায় খবর দেয়া হলে কোতয়ালী থানা পুলিশের একটি দল রূপাতলী গিয়ে ওই ৫ হিজড়াকে আটক করে।

কোতয়ালী মডেল থানার ওসি শাহ্ মো. আওলাদ হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, চাঁদাদাবি এবং মারধরের অভিযোগে আটক ৫ হিজড়ার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করা হয়েছে। ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।