কোচিং সেন্টারে অভিভাবক লাঞ্ছিত

কোচিং সেন্টারে অভিভাবক লাঞ্ছিতনিজস্ব প্রতিবেদক॥ নগরীর বৈদ্যপাড়া অনির্বাণ ক্যাডেট কোচিং সেন্টারে এক অভিভাবককে লাঞ্ছিত করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার সকালে লাঞ্ছিত অভিভাবকের নাম আকলিমা আক্তার পুতুল। সে অনির্বান কোচিং এর আবাসিক ছাত্র পিয়াসের শিক্ষিকা মা। তবে অভিভাবক লাঞ্ছিতের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কোচিং কর্তৃপক্ষ।
লাঞ্ছিত হওয়া অভিভাবক এবং মঠবাড়িয়া ললিভিম চন্দ্র সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা পুতুল জানান, তার ষষ্ঠ শ্রেনি পড়–য়া ছেলে পিয়াস অনির্বাণ ক্যাডেট কোচিং আবাসীক হলে থেকে পড়াশুনা করছে। গতকাল বুধবার তিনি তার ছেলে পিয়াসের সঙ্গে দেখা করার জন্য যান। এসময় তিনি তার ছেলেকে ঐ কোচিং সেন্টার থেকে অন্যকোথাও নিয়ে আলাদা ভাবে রাখার কথা বলেন। কিন্তু তাতে বাধ সাজে কোচিং সেন্টার কর্তৃপক্ষ। এমনকি তারা ক্ষিপ্ত হয়ে পিয়াসের মায়ের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পরে এবং পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। এক পর্যায়ে ঐ অভিভাবককে ধাক্কা দিয়ে বাইরে বের করে গেটে তালা লাগিয়ে দেন কোচিং সেন্টারের লোকেরা।
এদিকে সংবাদ সংগ্রহের জন্য বরিশাল মিডিয়ার বেশ কয়েকজন সংবাদ কর্মী ঘটনাস্থলে গেলে তাদের ম্যানেজের চেষ্টা করেন কোচিং এর পরিচালক বেলাল হোসেন। তবে তাতে ব্যর্থ হন তিনি। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
পিয়াসের মা জানান, দীর্ঘদিন যাবত শুনতে পাচ্ছি অনির্বান ক্যাডেট কোচিং সেন্টারে পিয়াসের উপর অমানুষিক অত্যাচার করা হচ্ছে। এ খবর পেয়ে প্রথমে তার বাবা মঠবাড়িয়ার ললিভীম চন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম বাবুল ছেলের সাথে দেখা করতে যান। কিন্তু কোচিং সেন্টার কর্তৃপক্ষ তাকে দেখা করতে না দিয়ে ফিরিয়ে দেন। এরপর তাকেও একই ভাবে লাঞ্ছিত করেন অনির্বান ক্যাডেট কোচিং সেন্টার কর্তৃপক্ষ। তাই এই প্রতিষ্ঠানে ছেলেকে পড়াতে রাজি হলেও তাকে কোচিং এর আবাসীক হলে ছেলেকে রাখতে রাজি হননি তিনি।