কাল থেকে বসছে কোরবানীর হাট

রুবেল খান ॥ ঘনিয়ে আসছে পবিত্র ঈদ-উল-আজহা। আর মাত্র ৭ দিন বাদেই পশু কোরবানীর মধ্যে দিয়ে ঈদ-উল-আজহা পালন করা হবে। তাই ইতিমধ্যে বরিশাল নগরী সহ দক্ষিণাঞ্চলে সম্পন্ন হয়েছে কোরবানীর হাটের প্রস্তুতি। আগামীকাল অর্থাৎ ৭ সেপ্টেম্বর থেকেই অস্থায়ী ভিত্তিতে বসানো হাটগুলোতে কোরবানীর পশু আসতে শুরু করবে। অবশ্য স্থানীয় হাট গুলোতে গত সপ্তাহ থেকেই কোরবানীর পশু বেচা-বিক্রি শুরু করেছে পাইকার ও বেপারীরা।
বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এবং জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগ সূত্রে জানাগেছে, গত কোরবানীর থেকে এ বছর কোরবানীতে বরিশাল জেলায় হাটের সংখ্যা বেড়েছে। তবে কমেছে স্থায়ী হাটের সংখ্যা। জমির মালিকানা নিয়ে বিরোধ এবং মামলা চলার কারনে কয়েকটি স্থায়ী হাটের ইজারা বাতিল করা হয়েছে। কিন্তু স্থায়ী হাটের সংখ্যা কমে গেলেও বেপারী কিংবা ক্রেতাদের মাঝে এর তেমন প্রভাব পড়বে না বলে দাবী সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তাদের। কারন অস্থায়ী হাট বেশি হওয়ায় স্থায়ী হাটের সংকট তেমন প্রভাব ফেলতে পারবে না।
এদিকে খোঁজ খবর নিয়ে জানাগেছে, কোরবানীর ঈদ সন্নিকটে থাকায় বরিশাল নগরী সহ দক্ষিণাঞ্চলের স্থায়ী এবং অস্থায়ী পশুর হাট গুলো ইতিমধ্যে পশু রাখা এবং বেচা-বিক্রির জন্য উপযুক্ত করে তোলা হয়েছে। এখন শুধু পশু আসার অপেক্ষা।
নগরীর পোর্ট রোড কশাইখানা এলাকার স্থায়ী গরুর হাটের ইজারাদার জানান, আমরা সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। এখন গরু আসার অপেক্ষা মাত্র। আশা করি কাল অর্থাৎ ৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যেই বেপারীরা গরু নিয়ে হাটে পৌছাবে।
২৪নং ওয়ার্ডে রূপাতলী মোল্লাবাড়ি মাদ্রাসা সংলগ্ন অস্থায়ী হাটের ইজারাদার নাজমুল হুদা বলেন, বরিশাল তথা দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে আমাদের হাটটি সর্ববৃহৎ। গত সপ্তাহে অনুমোদন পাবার পরে হাট প্রস্তুত করা হয়েছে। বেপারী এবং বিক্রেতাদের থাকা খাওয়ারও ব্যবস্থা করেছেন তারা। এছাড়া ইতিপূর্বে তাদের হাটে গরু নিয়ে আসা দেশের বিভিন্ন স্থানের বেপারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। তারা কাল অর্থাৎ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ট্রাক যোগে কোরবানীর গরু এবং খাসি নিয়ে আসবে বলে ধারনা তাদের।
এদিকে কাউনিয়া টেক্সটাইল এর অস্থায়ী গরুর হাটের ইজারাদাররা বলেন, দু’এক দিনের মধ্যে হাটে গরু আসতে শুরু করলেও হাট জমে উঠতে সময় লাগবে। আগামী শুক্রবার থেকে হাটে বেচা বিক্রি জমে উঠবে বলে জানিয়েছেন তারা।
এদিকে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের হাট বাজার শাখার পরিদর্শক আবুল কালাম বলেন, এবার নগরীতে স্থায়ী-অস্থায়ী মিলিয়ে ৯টি হাট বসবে। এদের ঈদের ৫ দিন পূর্বে থেকে হাট বসানোর অনুমতি দেয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে হাট বসার কথা ছিলো। কিন্তু যেহেতু ঈদ একদিন পিছিয়েছে সেহেতু হাট বসাতে হবে ৮ সেপ্টেম্বর থেকে। অবশ্য এর পূর্বে ৭ সেপ্টেম্বর বেপারীরা হাটে গরু নিয়ে আসলে সে ক্ষেত্রে বিশেষ বিবেচনায় বেচা-বিক্রি করতে পারবে।
অপরদিকে কোরবানীর হাটে নিরাপত্তা জোরদারের লক্ষে নানা প্রস্তুতি নিয়েছে বরিশাল মেট্রোপলিটন এবং জেলা পুলিশ। প্রত্যেকটি হাটে পুলিশের পক্ষ থেকে অস্থায়ী ক্যাম্প এবং সাদা পোশাকে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার থাকবে। এর পাশাপাশি প্রতারক চক্রের হাত থেকে ক্রেতা এবং বিক্রেতাদের রক্ষা করতে প্রশাসন ও ইজারাদারদের পক্ষ থেকে দৃষ্টি রাখা হবে। প্রত্যেকটি হাটে বসানো হবে জাল নোট সনাক্তকরন মেশিন। করা হবে সতর্কতামূলক মাইকিং। তাছাড়া ক্রেতা সাধারনের সুবিধার্থে হাট গুলোতে ইতিমধ্যে অনলাইন ব্যাংকিং এর বুথ খোলা হয়েছে বলে হাটের ইজারাদাররা জানিয়েছেন।
এদিকে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে অন্যতম হাট হচ্ছে বানারীপাড়ার গুয়াচিত্রা, বাকেরগঞ্জের বোয়ালীয়া এবং গৌরনদীর একটি ঐতিহত্যবাহী গরুর হাট। স্থায়ী এই হাট তিনটিতে প্রতি বছর দেশি এবং বিদেশী গুরুর পাশাপাশি আসছে মরুভূমির জাহাজ খ্যাত উটও। এ তিনটি সহ দক্ষিণাঞ্চলের স্থায়ী হাটগুলোতে গত এক সপ্তাহ আগে থেকেই হাটবার দিনে গরুর বেচা-বিক্রি হয়ে আসছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।