কারাগার বিএনপি জোট নেতাকর্মিতে পূর্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বিএনপি নেতাকর্মীতে ভরে উঠেছে বরিশালের কেন্দ্রীয় কারাগার। পুলিশের করা মামলায় গত কয়েকদিনে প্রায় শতাধিক নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। বিভিন্ন তারিখে পৃথক পৃথক আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আাবেদন করে নেতাকর্মীরা। এ সময় আদালতের বিচারকগণ তাদের জামিন না মঞ্জুর করে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আদালতে সূত্র জানায়, ১ জানুয়ারি থেকে সরকার বিরোধী আন্দোলনে লাগাতার অবরোধের ডাক দিয়েছিল ২০ দলীয় ঐক্যজোট। এ সময় অবরোধের সমর্থনে নেতাকর্মীরা সড়ক অবরোধ, গাড়ি ভাংচুর, পেট্রোল বোমা নিক্ষেপসহ বিভিন্ন ধরনের সরকার বিরোধী কর্মকান্ডে অংশ নেয়। এ ঘটনায় পৃথক থানার পুলিশ আলাদা আলাদা ঘটনায় নেতাকর্মীদের অভিযুক্ত করে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করে। এর ধারাবাহিকতায় তারা বিভিন্ন তারিখে আদালতে হাজির হয়ে জামিনের জন্য আর্জি জানায়। এর মধ্যে ২৭ জুলাই পৃথক ৩ মামলায় মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে হাজির হয় বাবুগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ওয়াহিদুজ্জামান প্রিন্সসহ ১২ জন। পরের দিন ২৮ জুলাই বানারীপাড়া উপজেলা বিএনপির সম্পাদক গোলাম মাহমুদ ওরফে মাহাবুব মাষ্টার, পৌর বিএনপির সভাপতি খলিলুর রহমান চোকদার, ছাত্রদলের সভাপতি হাবিবুর রহমান জুয়েল, শিবির সভাপতি আতিকুল ইসলামসহ ১১ নেতাকর্মী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-৩ এ হাজির হয়। এ সময় ওই আদালতের বিচারক মোঃ আদীব আলী ও তাদের জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এছাড়াও ওই দিনই ভোলা সিনিয়র জুডিসিয়াল আদালতে আত্মসমর্পন করেন যুবদল সভাপতি ইয়ারুল আলম লিটন সহ আরও ৩১ নেতাকর্মী। ওই আদালতের বিচারকও তাদের জেলে পাঠান। ওই অবরোধে নগরীতে ট্রাকে পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ, লঞ্চে অগ্নিসংযোগ, ও গাড়িতে ভাংচুরসহ পৃথক ও মামলায় গত ২ আগষ্ট পৃথক আদালতে হাজিরা দেয় ৩ কাউন্সিলরসহ ১৭ নেতাকর্মী। এদের মধ্যে ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিএনপির মহানগর শাকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদ জিয়া উদ্দিন সিকদার, ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর যুগ্ম সম্পাদক এ্যাডঃ মীর জাহিদুল কবির জাহিদ ও ২৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মহানগর কমিটির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ ফরিদউদ্দিন হাওলাদার সহ ১৭ জন। এদেরকে জেলে পাঠানো হয়। অবশেষ গত ১১ আগষ্ট জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করেন বাকেরগঞ্জ উপজেলার সাবেক এমপি আবুল হেসেন সহ ৯ নেতাকর্মী। এ সময় বিচারক মোঃ আনোয়ারুল হক নাসির জোমাদ্দার নামের একজনকে জামিন দিয়ে অন্য ৮ জনকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এছাড়াও গতকাল দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়েদুল হক চাঁন ও সম্পাদক আবুল কালাম শাহীনকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক বেগম নুসরাত জাহান। যার প্রেক্ষিতে ধিরে ধিরে ভরে উঠেছে বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগার।