কাউন্সিলর জিয়া ও ছাত্রদল নেতা সোহেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ লঞ্চে অগ্নিসংযোগের মামলায় মহানগর বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক ও ২৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জিয়া উদ্দিন সিকদার ও বিএনপি নেতা মেহেদী হাসানকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক বেগম নুসরাত জাহান কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশকে এই নির্দেশ প্রদান করেন।
এর আগে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) আবু তাহের ঐ দু’জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের কাছে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।
বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের জিআরও (কোতয়ালী) উপ-পরিদর্শক আশিষ কুমার পাল মামলার নথির বরাত দিয়ে জানান, সরকার বিরোধী আন্দোলন চলাকালে গত ২০ জানুয়ারী রাতে বরিশাল নৌ বন্দরে ঢাকার উদ্দেশ্যে নোঙ্গর করা যাত্রীবোঝাই সুন্দরবন-৭ এবং পারাবত-১০ লঞ্চের কেবিনে দুর্বিত্তরা অগ্নি সংযোগ করে। এতে পারাবত ও সুন্দরবন লঞ্চের তিনটি কেবিনের বেডসীট পুড়ে যায়। তবে স্টাফরা তাৎক্ষনিক আগুন নিভিয়ে ফেলায় বড় ধরণের ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পায় লঞ্চ দুইটি এবং শত শত যাত্রীরা।
অগ্নি সংযোগের এই ঘটনায় ২০ জানুয়ারী রাতেই কোতয়ালী মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এ.এস.আই) মোস্তাফিজুর রহমান বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। ঐ মামলায় নগর বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক জিয়া উদ্দিন সিকদার ও মেহেদী হাসান সহ বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীদের ও অজ্ঞাতনামা আসামী করা হয়। ঐ মামলায় দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ২ আগস্ট লঞ্চে অগ্নি সংযোগ ছাড়াও দপদপিয়া এলাকায় ট্রাকে অগ্নি সংযোগ সহ নাশকতার আরো তিন মামলায় বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের ১৬ নেতাকর্মী আদালতে আত্মসমর্পনর করে জামিনের আবেদন জানান। আদালতের বিচারক তাদের জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরনের নির্দেশ দেন।