কমিউনিটি ক্লিনিকে ধর্ষণ চেষ্টার শিকার স্কুল ছাত্রীর বিষপান

মঠবাড়িয়া সংবাদদাতা ॥ উপজেলার বড়মাছুয়া কমিউনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে গিয়ে ধর্ষনের চেষ্টার শিকার অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী আত্মহত্যার জন্য বিষপান করেছে। লোক লজ্জার ভয়ে মঙ্গলবার সে বিষপান করে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে থানায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত কমিউনিটি ক্লিনিকের প্রোভাইডার খলিলুর রহমানকে (২৪) আটক করেছে। সে ওই এলাকার সালেহ্ তালকদারের ছেলে।
পুলিশ ও স্কুল ছাত্রীর মা জানায়, গত ২৫ অক্টোবর ওই স্কুল ছাত্রী দক্ষিন বড়মাছুয়া গ্রামের দারোগা বাড়ি সংলগ্ন কমিউনিটি ক্লিনিকে জ্বর ও সর্দি কাশির ঔষধ আনতে যায়। এসময় হেল্থ প্রোভাইডার খলিলুর রহমান কৌশলে ওই ছাত্রীকে বসিয়ে রাখে। পরে ক্লিনিকের দরজা বন্ধ করে ওই স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। স্কুল ছাত্রীর ডাক-চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে। পরে এঘটনায় প্রভাবশালী একটি মহল শালিস ব্যবস্থা করে ২৫ হাজার টাকা দিয়ে জোর করে লিখিয়ে নিয়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে। ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে লোক লজ্জায় স্কুল ছাত্রীটি গত মঙ্গলবার বিকেলে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। গত তিন ধরে স্কুল ছাত্রীটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে।
থানা অফিসার ইনচার্জ খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অভিযুক্ত খলিলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।