এমএল ঐশী লঞ্চ নয়, এটি একটি অবৈধ ট্রলার!

নিজস্ব প্রতিবেদক জেলার বানারীপাড়া উপজেলার সন্ধ্যা নদীতে ডুবে যাওয়া নৌযান এমএল ঐশী- প্লাস নামের নৌযানটি লঞ্চ নয়। এটি অবৈধ ভাবে চলাচলকারী একটি ট্রলার।

বরিশাল নৌ বন্দর কর্মকর্তা ও নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যাবস্থাপনা বিভাগের অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ডুবে যাওয়া নৌযান এমএল ঐশী প্লাস নামে লঞ্চ হিসেবে প্রচারণা করা হলেও এটা আদৌ কোন লঞ্চ নয়।

এছাড়া নৌযানটি এমএল টাইপেরও নয়। অবৈধ ভাবে যাত্রী পরিবহনকারী একটি ট্রলার মাত্র।

তিনি জানান, এমএল টাইপের লঞ্চের জন্য সার্ভে সনদ, রেজিস্ট্রেশন ও সময়সূচি থাকার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু এসব বৈধ কোনো কাগজপত্রই এমএল ঐশীর নেই। নৌযানটি নিজেদেন মনমত করে নাম ব্যাবহার করে এবং খেয়াল খুশিমত অবৈধভাবে যাত্রী পরিবহন করে আসছিলো। এর বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তদন্তক কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রের মো. জাকির হোসেন বলেন, মানুষের জীবন নিয়ে তামাশা করার অধিকার কারোর নেই। তাই অবৈধ ভাবে চলাচলকারী সকল লঞ্চের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিৎ। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে তারা তাদের তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নিকট জমা দিবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।