এক নারী হত্যার আসামী মুক্তির জন্য আরেক জনের জীবন হুমকিতে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর জিয়ার সড়ক এলাকার চাঞ্চল্যকর শিউলী হত্যা মামলার প্রধান আসামীকে রক্ষার জন্য আরেক গৃহবধূর জীবন হারানোর শংকায় পড়েছে। এই ঘটনায় নবগ্রাম রোড এলাকার বাসিন্দা তিন সন্তানের জননী গৃহবধূ রেবা বেগম থানা ও আদালতে লিখিত অভিযোগ করেছে।
গৃহবধূ রেবা জানায়, স্বামী শহিদ খান ও তার নামে নবগ্রাম রোড সামসু মিয়ার গ্যারেজ খাল সড়কে জমি রয়েছে। ওই জমি বিক্রির উদ্যোগ নেয় স্বামী শহিদ খানের ভগ্নিপতি সালাম। জমি বিক্রির টাকা দিয়ে মীমাংশার মাধ্যমে শিউলী হত্যা মামলার আসামী পলাতক ছেলে সুমনকে ফিরিয়ে আনবে। তিন সন্তানকে নিয়ে মাথা গোজার ঠাই ও সম্পদ জমি বিক্রি করতে বাধা দেয় রেবা। তখন স্বামীর মাধ্যমে যৌতুক এনে দেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ শুরু করে। দরিদ্র মায়ের পক্ষে যৌতুক না দেয়ায় ভগ্নিপতি সালামের পরামর্শে নির্যাতন শুরু করে স্বামী শহিদ। স্বামীর নির্যাতনে হাসপাতালে যেতে হয়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গন্যমান্য বিষয়টি সমাধান করলেও সালামের প্ররোচনায় শহীদ নির্যাতন অব্যাহত রাখে। এক পর্যায়ে আদালতে মামলা করা হয়। এর পর থেকে তাকে উৎখাত করে জমি বিক্রির চেষ্টা শুর করে শহিদ ও সালামসহ সহযোগি রতন। তারা বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে উৎখাতে ব্যর্থ হয়ে হত্যার পরিকল্পনা করে। তখন থানায় সাধারন ডায়েরী করেন। যৌতুকের জন্য নির্যাতন মামলায় স্বামীকে কারাগারে পাঠায় আদালতের বিচারক। এর পর থেকে সালাম ও রতনসহ সহযোগিরা শিউলীর মতো তাকে হত্যার হুমকি দেয়া শুরু করেছে বলে রেবা অভিযোগ করেছে। এমনকি তার লাশ কেউ খুজে পাবে না বলে হুমকি দেয়। রাতে ঘরের উপর ইট নিক্ষেপ, দরজায় কড়া নেড়ে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এই ঘটনায় আদালতে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে রেবা। এতে তারা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে হত্যার পর গুম করার পরিকল্পনা শুরু করেছে জানিয়ে রেবা বর্তমানে জীবন হারানোর শংকা আতংকিত রয়েছে।