উপজেলার মাসিক সভায় বিভিন্ন দপ্তরের অনিয়মের অভিযোগ

হিজলা প্রতিবেদক॥ হিজলা উপজেলা পরিষদের মাসিক সাধারন সভায় বিভিন্ন দপ্তরের অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ টিপুর সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন কমিটির সদস্য ও প্রতিনিধিরা। প্রতি মাসের ন্যায় বিভিন্ন উন্নয়ন ও অনিয়মের অভিযোগগুলো তুলে ধরেন বক্তারা।
মেমানিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আফসার উদ্দিন হাওলাদার বলেন, জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আওতায় যতগুলো গভীর নলকূপ বসানো হয়েছে তার ৮০ ভাগ নলকূপের পানি পান করা যায় না।
বড়জালিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান এলজিইডি কর্মকর্তার উদ্দেশ্যে বলেন, অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে বড়জালিয়া ইউনিয়নের প্যাদা বাড়ীর সামনে নির্মিত ব্রীজটি জনগনের কোন কাজে আসেনি। ওই ব্রীজে উঠতে হলে লিফটের প্রয়োজন হয়। ২/৩ বছর আগে ব্রীজটির কাজ সম্পন্ন হলেও এখনও জনগন ওই ব্রীজ দিয়ে যাতায়াত করতে পারছেনা।
হিজলা-গৌরবদী ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মিলন তার বক্তব্যে বলেন, জাইকার রাস্তাসহ বিভিন্ন প্রকল্পের কাজের গুনগত মান এতটাই খারাপ যে তা ৫ বছরও টিকবে না, অথচ ২৫ বছরের গ্যারান্টি দেওয়ার কথা। তিনি আরও বলেন, যদি ৫০ ভাগ কাজও হত তাহলে মেনে নেওয়া যেত। হিজলা উপজেলা প্রকৌশলী অমল চন্দ্র রায় কোন প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে শুধু বললেন, “আমাদের জনশক্তির অভাব কিছুই করার নেই।”
গুয়াবাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন ঢালী তার বক্তব্যে বলেন, হিজলা উপজেলা পরিসংখ্যান অধিদপ্তরে জরিপের কাজ না করে ভূয়া তালিকা ও আয়তন কমিয়ে তালিকা প্রনয়ন করায় ৪০ দিনের কর্মসূচীতে গত বছর থেকে এ বছর ১২শ’ শ্রমিকের কম বরাদ্দ হয়েছে এবং এডিপি প্রকল্পে ৫৪লাখ টাকা বরাদ্দ থেকে কমিয়ে ৪৫লাখ টাকা বরাদ্দ হয়েছে। এই সমস্যা সমাধান সহ ওই দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান। উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন হাওলাদার বলেন, হিজলা উপজেলা সড়ক ও জনপথের কাজের মান নি¤œমানের হওয়া সত্বেও আমরা কোন প্রতিবাদ করতে পারিনি। তিনি আরও বলেন, রাস্তা নির্মানে যে মালামাল ব্যবহার করার কথা তার কিছুই হয়নি। এমনকি সড়ক ও জনপথের কোন প্রকৌশলী নির্মান কাজের তদারকিও করেননি। ঠিকাদার তার মন মত কাজ শেষ করে চলে গেছেন। তাই আমার দাবী উপজেলা পরিষদের লিখিত রেজুলেশনের মাধ্যমে জেলা পরিষদের মিটিংয়ে উপস্থাপন করা। সর্বশেষ সভার সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ টিপু তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, গত বছরে এডিপি প্রকল্পের কাজ এখনও শেষ হয়নি। অথচ আবার নতুন করে প্রকল্প বরাদ্দ হয়েছে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি, অসমাপ্ত প্রকল্পগুলোর কাজ দ্রুত গতিতে সমাপ্ত করার নির্দেশ দেন তিনি।