উত্তরসহ প্রশ্নপত্র ফাঁস ভোলায় চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের কর্মচারী নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণায় বিক্ষোভ-সড়ক অবরোধ

ভোলা অফিস॥ ভোলায় চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের সহায়ক কর্মচারী নিয়োগ পরীক্ষা শুরুর পর পরই স্থগিত করায় পরীক্ষার্থীরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেছে। বিক্ষুদ্ধ পরীক্ষার্থীরা গতকাল শুক্রবার সকাল সোয়া ১০ টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত জজকোর্টের সামনের সড়কে অবস্থান নিয়ে শ্লোগান দিতে থাকে। এসময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ জজকোট এলাকায় সদর থানার ওসি’র নেতৃত্বে বিপুল পরিমান পুলিশ মোতায়েন করা হয়। উত্তরসহ প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ায় তাৎক্ষণিক পরীক্ষা স্থগিত করার পর এ ঘটনা ঘটে।
এদিকে নির্ধারিত সময়ের প্রায় ৪ ঘন্টা পর দুপুর ২টায় নতুন প্রশ্নপত্রে স্থাগিত পরীক্ষা পুনরায় অনুষ্ঠিত য়েছে। এসময় প্রশ্নপত্র ফাঁস এড়ানোর জন্য জজশিপের উর্ধতন কর্মকর্তারা কক্ষে কক্ষে গিয়ে নিজ হাতে প্রশ্ন বিতরণ করতে দেখা গেছে।
চাকুরী প্রার্থীরা জানান, নির্ধারিত সময় সূচি অনুযায়ি গতকাল শুক্রবার সকাল ১০ টায় নিয়োগ পরীক্ষা শুরু হয়। উত্তর পত্রে (খাতায়) নাম ও রোল নম্বর লেখার পর পরই  খাতাগুলো ফেরত নেয় কর্তৃপক্ষ। পরীক্ষা শুরুর আগেই উত্তরসহ প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ায় পরীক্ষা তাৎক্ষণিত স্থগিত করে দুপুর ২ টায় পুনরায় পরীক্ষা নেওয়ার কথা জানানো হয়। এর পর ৫টি কেন্দ্র থেকে বের হওয়া চাকুরী প্রার্থীরা একত্রিত হয়ে শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও গাজিপুর রোডের হাজী সামসুদ্দিন মার্কেটের সামনে সড়ক অবরোধ করেন। একই সময়ে কিছু পরীক্ষার্থী জেলা জজ আদালতের প্রধান গেটে অবস্থান নিয়ে অনিয়ম ও দুর্নিতির অভিযোগে নানা শ্লোগান দিতে থাকে। পরীক্ষা শুরুর আগেই বিভিন্ন ফটোস্ট্যাস্ট দোকানে উত্তরসহ প্রশ্নপত্র পাওয়া যায়।
এদিকে পরীক্ষা স্থগিতের পর পরই জরুরী বৈঠক করেন আদালতের কর্মকর্তারা। বেলা ১১ টায় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আবদুল গনি গেটে অবস্থান নেওয়া পরীক্ষার্থীদের জানান, নতুন প্রশ্নপত্রে দুপুর ২ টায় আবারো পরীক্ষা নেওয়া হবে। তবে এ ঘোষণার পর অবস্থান নেওয়া পরীক্ষার্থীরা হৈ চৈ করে ওঠে এবং নানা অভিযোগের কথা উল্লেখ করে শ্লোগান দিতে থাকে। এ বিষয়ে বক্তব্যের জন্য সাংবাদিকরা নিয়োগ সংক্রান্ত বাছাই কমিটির চেয়ারম্যান ও চীফ জুডিশিয়াল ম্যােিস্ট্রট মো. আবদুর রব হাওলাদার এর সাথে যোগাযোগ করতে গেলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট নাহিদুর রহমান নাহিদ জানান, “ স্যার প্রশ্ন করার কাজে ব্যস্ত আছেন। এখন কথা বলা যাবে না।”
ঘটনাস্থলে উপস্থিত সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোবাশ্বের আলী জানান, কোনভাবে যেন আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি না ঘটে সেজন্য পুলিশ সর্তক অবস্থায় রয়েছে।
ভোলার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের সহায়ক কর্মচারী প্রসেস সার্ভার, স্টোনো গ্রাফার, মালি, এম এল এস এস, নৈশ প্রহরী, তুলনা সহকারী ও ডেসপাস সহকারীর ৮টি পদে ১৮ জন লোক নিয়োগের জন্য গত ফেব্রুয়ারি মাসে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। এর জন্য মোট ২ হ্জাার ৬৪০ জন আবেদন করেন। যাচাই- বাছাই শেষে বৈধ ২ হাজার ৯৮ জন গতকাল সরকারি ফজিলাতুনেছা মহিলা কলেজ, সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, ওবায়দুল হক কলেজসহ ৫টি কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গছে।
আন্দোলন সম্পর্কে জানতে চাইলে তুলনা সহকারী পদের প্রার্থী মো. বজলুর রহমান ও মো. আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করেন, অনিয়ম ও দুর্নিতির কারনে কারণে প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে অনেক প্রার্থী এসেছেন। সঠিক সময় পরীক্ষা না হওয়ায় তারা নানা ধরনের ভোগান্তিতে পড়তে হবে। মো. মঈন, আওলাদ, মো. হোসেনসহ আরো কয়েকজন প্রার্থী অভিযোগ করেন, এ ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের লোকজন জড়িত রয়েছে। তাদের চিহ্নিত করে শাস্তির দাবি জানান তারা।