উজিরপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় সন্ত্রাসীর বিচ্ছিন্ন হাত উদ্ধার, আটক-৩

উজিরপুর প্রতিবেদক ॥ উজিরপুরে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মিশুক চালকের বিচ্ছিন্ন হওয়া হাতের অংশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এছাড়াও ঘটনার সাথে জড়িত তিনজনকে আটক করা হয়েছে। সোমবার রাতে ওই ঘটনায় মিশুক চালক সুমন গাজীর অপর হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন করেছে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা। এতে গুরুতর আহত সুমনকে ঢাকা নেয়া হয়েছে। সে ওই এলাকার সোহরাব গাজীর ছেলে। মা প্রবাসী হওয়ায় নানা গড়িয়া গ্রামের মৃত আব্দুল হাইয়ের বাড়ীতে থাকে সে।
উজিরপুর থানার ওসি নুরুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থল গড়িয়াগাভা এলাকার হাসেম সিকদারের বাড়ির আঙ্গিনা থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া হাত উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় উজিরপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে সুমনের ভাই রাজু গাজী। পুলিশ অভিযান চালিয়ে টিটু হাওলাদার, কাওছার সিকদারসহ ৩ জনকে আটক করেছে।
পুলিশ জানায়, ওই এলাকার উঠতি সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত সুমন গাজী গড়িয়াগাভা ফজলুল হকের দোকানের পূর্ব পাশে অবস্থান করে। প্রতিপক্ষ জসিম বাহিনী এই খবর পেয়ে সেখানে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। নিজেকে বাচাতে সুমন দৌড় দিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। কিন্তু হাসেম সিকদারের বাড়ীর আঙ্গিনায় গিয়ে পড়ে যায়। তখন প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা সেখানেই সুমনকে উপর্যপুরি কুপিয়ে তার ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করে। এছাড়া বাম হাতও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ঝুলে যায়। পুলিশ আশংকাজনক অবস্থায় সুমনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।
স্থানীয়রা জানিয়েছে, সুমন গাজী গড়িয়া নতুন হাটসহ আশেপাশের এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে। মাদক ব্যবসা, চুরি ডাকাতি সহ বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িত ছিলো সে। কিছু দিন পূর্বে ওই এলাকার প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসী জসিমের সাথে সংঘর্ষ হয়। জসীমকে কুপিয়ে হাতের একটি আঙুল কেটে ফেলে সুমন। সুমনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদকারী মাইনুল হাওলাদার, মাহাবুব গোমস্তা ও টিটুসহ কয়েকজনকে পিটিয়ে কুপিয়ে আহত করেছে। কিছুদিন পূর্বে সর্বহারা নেতা একাধিক মামলার আসামী সুলতানের সাথে সুমনের সংঘর্ষ হয়। এর জেরে তার উপর হামলা হয়েছে।