উজিরপুরে ছাত্রদল নেতা খুন

শাকিল মাহমুদ বাচ্চু, উজিরপুর ॥ উজিরপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এক ছাত্রদল নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে শ্রমিক লীগের সন্ত্রাসীরা। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার রাখালতলা এলাকায় এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। নিহত ছাত্রদল নেতা সোহাগ সর্নামত (২৫)। সে বিএনপি নেতা ফারুক সর্নামতের ছেলে। এ ঘটনায় পুলিশ এক সন্ত্রাসীর বাবাকে আটক করেছে।
জানাগেছে, উপজেলার গুঠিয়া ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি একাধিক মামলার আসামী লালন মহুরির সাথে দীর্ঘ দিন ধরে আধিপত্ত বিস্তারকে কেন্দ্র করে সোহাগ সর্নামতের বিরোধ চলে আসছিলো। এ নিয়ে ইতিপূর্বে দুই পক্ষের মধ্যে একাধিকার সংঘাত-সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
এর প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার রাতে সোহাগ তার বন্ধু জাহাঙ্গীর ও সাইফুলকে মোটর সাইকেল এগিয়ে দিতে যায়। জাহাঙ্গীরকে বাড়ির সামনে নামিয়ে দিয়ে সাইফুলকে নিয়ে ফেরার পথে উপজেলার রাখালতলা ভিআইপ রোডে পূর্বে থেকে ওৎ পেতে থাকা শ্রমিক লীগ ক্যাডার লালন তার দলবল সোহাগের মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে। এক পর্যায় সোহাগ ও সাইফুলকে লক্ষ্য করে এলোপাথারী কোপাতে থাকে। এতে ঘটনাস্থলে ছাত্রদল নেতা নিহত হয়। সোহাগের মৃত্যু নিশ্চিত করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে লালন ও তার সন্ত্রাসী বাহীনি। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে সেখানকার দায়িত্বরত চিকিৎসক সোহাগের মৃত্যু নিশ্চিত করেন। এছাড়া উন্নত চিকিৎসার জন্য তার বন্ধু সাইফুলকে বরিশাল শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় হাসপাতালে প্রেরন করেন।
এদিকে উজিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আনোয়ার হোসেন জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সোহাগ সর্নামতকে হত্যা করা হয়েছে। ইতিপূর্বে সোহাগ শ্রমিক নেতা লালনকে কুপিয়ে জখম করেছিলো। তবে হত্যাকান্ডের ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া ঘটনার পর পরই শ্রমিক লীগ নেতা লালনের বাবা কাশেম মহুরীকে আটক করা হয়েছে। তিনি বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শেবাচিমের মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কোন মামলা বা লিখিত অভিযোগ পাননি বলে তিনি জানিয়েছেন।