উজিরপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

উজিরপুর প্রতিবেদক॥ উজিরপুরের ধামুরায় এক গৃহবধূকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের ছত্তার হাওলাদারের মেয়ে ৩ সন্তানের জননী রেশমা বেগম (৩০) ধামুরা বাসস্ট্যান্ডের পাশে জেসমিন বেকারীর মালিক সেন্টু বেপারীর বিশ্রাম ঘরের পাশে রান্না ঘরের বাঁশের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায় সিলভার বিক্রেতা রেশমার স্বামী সোহরাব হাওলাদার। তার ডাক চিৎকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে এসে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ লাশের সুরতহাল শেষে শেবাচিম হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণ করে।
সোহরাব হোসেন জানান, তার স্ত্রী রেশমাকে জেসমিন বেকারীর মালিক সেন্টু বেপারী প্রায়ই কুপ্রস্তাব দিত। এ নিয়ে আমার সাথে সেন্টুর হাতাহাতিও হয়েছে। ঘটনার রাতে আমরা স্বামী-স্ত্রী একত্রে ঘুমাই। ভোর রাতের দিকে আমার স্ত্রী প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বের হয়। সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে স্ত্রীকে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখুজির পরে জেসমিন বেকারীর পাশে সেন্টুর বিশ্রাম ঘরের পাশে রান্না ঘরে বাঁশের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাই। ঘটনার সময় সেন্টু ঐ ঘরে ঘুমিয়েছিল। তাকে ডাকাডাকি করেও কোন সাড়া শব্দ পাইনি। পরে লোকজন আসলে সে ঘর থেকে বের হয়। স্বামীর অভিযোগ আমার স্ত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করবেন বলেও জানান তিনি।
এ বিষয়ে বেকারীর মালিক সেন্টু বলেন, আমাকে মিথ্যা অভিযোগে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। আর এ জন্যই কেউ ষড়যন্ত্র করে রেশমাকে হত্যা করে লাশ আমার রান্না ঘরে ঝুলিয়ে রেখেছে।
উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নুরুল ইসলাম-পিপিএম জানান, লাশ উদ্ধারের পরে শেবাচিমের মর্গে ময়না তদন্ত করা হয়েছে। ময়না তদন্ত’র রিপোর্ট পেলে হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে। তার পরেও প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য দুই জনকে আটক করা হয়েছে।