উজিরপুরের ১০ স্পটে অবাধে বিক্রি হচ্ছে মদ, গাঁজা, ফেন্সিডিল ও ইয়াবা

শাকিল মাহমুদ বাচ্চু, উজিরপুর ॥ বরিশালের উজিরপুরে প্রায় ১০টি মাদক স্পটে প্রকাশ্যে প্রতিদিন বিক্রি হচ্ছে মদ, রেকটিফাই স্পীট, গাঁজা, ফেন্সিডিল ও ইয়াবা সহ নানা প্রকার মাদক দ্রব্য। উজিরপুরের বেশির ভাগ যুবক এখন মাদকাসক্ত। বিশেষ করে উঠতি বয়সের স্কুল ও কলেজগামী ছাত্ররা ঝুঁকে পড়েছে নেশার দিকে। ফলে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ছে অভিভাবকরা।
উপজেলার শিকারপুর, ধামুরা, গুঠিয়া, হারতা, সানুহার, হস্তিশুন্ড, বামরাইল, জয়শ্রী, মাদরর্শী ও তারাবাড়ি, আটিপাড়া এলাকায় হাত বাড়ালেই মাদক পাওয়া যায়। ওইসব এলাকায় প্রতিদিন প্রকাশ্যে এক শ্রেণীর মাদক বিক্রেতারা গাঁজা, স্পীট ও ফেন্সিডিল, ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রি করে। আটিপাড়া এলাকায় মাদক সেবিদের ও মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় পুলিশ সদস্য আহতের ঘটনাও ঘটেছে। এদিকে বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, উজিরপুরের সবচেয়ে বড় মদক স্পট রয়েছে শিকারপুর ও বামরাইল এলাকায়। ওই এলাকায় সন্ধ্যার পরপরই পোস্ট অফিস গলি, কলেজ ও স্কুল মাঠ সহ বিভিন্ন গলি এবং ঘোপ-ঝোপের মধ্যে বসে গাজার আসর। অল্প বয়সের স্কুল ও কলেজ পড়–য়া ছাত্র, অটো রিক্সা, টমটম পরিবহন চালকসহ বিভিন্ন শ্রেণীর লোকজন এ আসর জমাচ্ছে। ওই এলাকার বেশ কয়েকজন চিহ্নিত গাঁজা ও ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী রয়েছে। এ ব্যবসার সাথে জড়িত কিছু ক্যাডার বাহিনী, তাদের বিরুদ্ধে যদি কোন সচেতন মানুষ প্রতিবাদ করে তাহলে তাদের নানারকম হুমকি প্রদান করা হয়। বামরাইলে মাদক ব্যবসা বন্ধের দাবিতে ইতিপূর্বে একাধিক সভা মানববন্ধন সহ নানা কর্মসূচিও পালন করেছে মাদক বিরোধী সতেচতন মানুষ। শিকারপুর গাজা ব্যবসা রোধের জন্য তেমন কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি স্থানীয় প্রশাসন। হারতা এলাকায়ও গাজার আসর বসে নিয়মিত। গুঠিয়া এলাকায় বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী গাজা বিক্রি করছে প্রকাশ্যে। এমনকি ওই এলাকায় বেশ কয়েকজন গাজাসেবী গাজা সেবন করে বিভিন্ন অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে। ধামুরা এলাকায়ও চলছে জমজমাট গাজার আসর। ধামুরার বেশ কয়েকজন গাজা ব্যবসায়ী প্রকাশ্যে তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। ওই এলাকায় গাজা, ফেন্সিডিল সহ নানা প্রকার নেশা বিক্রি হচ্ছে। সানুহারে র‌্যাব অভিযান চালিয়ে ফেন্সিডিলের তৈরির নকল কারখানা আবিস্কার করলেও বন্ধ হয়নি ওই এলাকার ফেন্সিডিলের ব্যবসা। বামরাইলের ফিসারী এলাকায় প্রায়ই বিভিন্ন মাদকসেবীরা আড্ডা জমায় নিয়মিত। উজিরপুরের যেসব স্পটে প্রকাশ্যে মাদকদ্রব্য বিক্রি হচ্ছে ওইসব এলাকার সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে মাদকসেবীদের অত্যাচারে। ওই সকল মাদকসেবীদের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী প্রতিবাদ করলে তারা নাজেহাল হচ্ছে ওইসব মাদকসেবীদের দ্বারা। উজিরপুরে ১০টি স্পটে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার মাদকদ্রব্য বিক্রি হচ্ছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। ইতিপূর্বে র‌্যাব-৮ একাধিক অভিযান চালিয়ে উজিরপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে বেশ কিছু ফেন্সিডিল উদ্ধার করেছে। র‌্যাবের দৃষ্টিতেও উজিরপুর ফেন্সিডিল ব্যবসার অন্যতম স্পট বলে ধারণা করা হচ্ছে। উজিরপুর থানার ওসি নুরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, উজিরপুরে মাদক ব্যবসা বন্ধের জন্য যা-যা করনীয় দরকার পুলিশ তা করবে।