ঈদের বেচা কেনার প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ ঈদ উল ফিতরকে সামনে রেখে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে নগরীর ব্যসায়িরা। ইতোমধ্যে রাজধানী ঢাকা থেকে আমদানী করতে শুরু করেছে বিভিন্ন রকমের পোশাক সামগ্রী। অনেকে আবার পূর্বে প্রস্তুতি হিসেবে দাদন দিয়ে রেখেছেন পাইকারদের। আগামী ১৫ই রমজান থেকে পুরো দমেই শুরু করবেন ঈদের বেচা কেনা।
গত ১৯ জুন থেকে শুরু হয়েছে সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান। রমজান মাসের শেষে মুসলমানদের প্রধান ধর্মীও উৎসব ঈদ উল ফিতর। এ দিনটিতে মুসলমানদের ঘরে ঘরে শোভা পায় নতুন পোশাক। নতুন পোশাকের আনন্দে কমতি থাকেনা গরিবের ঘরেও। ঠিক সেভাবে করে এবারো মুসলমানদের ঘরে বইতে শুরু করেছে ঈদের আগাম প্রস্তুতি। একমাস সিয়াম সাধনার পর সবাই মেতে উঠবে ঈদ আনন্দে।
এদিকে আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে প্রস্তুতি নিতে পিছিয়ে নেই ব্যবসায়ীরাও। আগে থেকেই তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নতুন এবং নানা ডিজাইনের আধুনিক পোশাক আমদানীতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন সকলে।
বরিশাল নগরীর সর্ববৃহত পোশাক বেচা কেনার মার্কেট চকবাজার, কাটপট্টি ও গৃজা মহল্লা। এসব এলাকার বিপনি বিতানগুলোতে পোশাক জগতের আধুনিক এবং উন্নতমানের পোশাকের দারুন সম্ভার ঘটে। এবারেও হচ্ছেনা এর ব্যতিক্রম। মান সম্মত পোশাক আমাদানী করতে আগে ভাগেই বিপনি বিতানের ব্যবসায়ীরা ইতোমধ্যে পোশাক সামগ্রী আমদানী শুরু করেছে।
নগরীর চক বাজারের বিপনী বিতানের বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপকালে তারা বলেন, আশা করা যাচ্ছে আগামী ১৫ রোজা থেকে ঈদ বাজার জমে উঠবে। এজন্য তারা ইতোমধ্যে বাজারের সব থেকে ভালো এবং উন্নত মানের পোশাক সামগ্রী আমদানীর জন্য ঢাকায় যোগাযোগ করেছেন। প্রাথমিক ভাবে কিছু পোশাক আজ রবিবার ৩ রমজানের মধ্যে বরিশালে পৌছাবে।
আবার বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, এখন পর্যন্ত ঈদের নতুন কালেকশন বাজারে আসেনি। এগুলো আসতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবে। তাছাড়া প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও বিভিন্ন তারকাদের ডিজাইন সম্বলিত পোশাক বাজারে আশার কথা শুনছি। তাই ঢাকার পাইকারদের অগ্রিম দাদন দিয়ে রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। এসব কালেকশন বাজারে আসার মূহুর্তে সেগুলো বরিশালে পৌছে যাবে। তবে ধারনা করা হচ্ছে এবার পোশাকারের মূল্য একটু হলেও বাড়বে। তাছাড়া বেচা কেনাও পূর্বের তুলনায় ভালো হবে এমন আশা ব্যক্ত করেন ব্যবসায়ীরা।
তারা বলেন, রোজার শুরুতেই আমরা পোশাক আমদানীর সকল ঝামেলা সেরে ফেলেছি। কেননা ঈদের পূর্বে বেচা কেনার চাপে আর সুযোগ পাওয়া যাবে না।